'সব খেলার সেরা বাঙালির তুমি ফুটবল'। এই গানকে আরও একবার বিশ্ব মঞ্চের সামনে তুলে ধরে ইতিহাস তৈরি করেছেন হাওড়ার সালকিয়ার শুভ পাল। বায়ার্ন মিউনিখের  অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্ব যুব দলে সুযোগ পাওয়ার খবর এখন সকলরে মুখে মুখে। তারপর থেকেই শুভেচ্ছার জোয়ারে ভাসছেন শুভ ও তার পরিবার। ছেলের কৃতিত্বে খুশি সামান্য গেঞ্জি কারখানায় কাজ করা বিপ্লব পাল। এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় শুভকে শুভেচ্ছা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

 

 

শুভ পালের হাওড়া থেকে জার্মানির বায়ার্ন মিউনিখের গল্প এখন অনেক উঠতি ফুটবল প্রতিভার কাছে অনুপ্রেরণা হয়ে উঠেছে। ফুটবল যে বাংলায় এখনও এক আবেগ সেই কথায় শুভকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে তুলে ধরেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ট্যুইটে তিনি লিখেছেন,'শুভ পালকে আমার হার্দিক শুভেচ্ছা। ও জার্মানিতে এফসি বায়ার্ন মিউনিখের ওয়ার্ল্ড স্কোয়াডে প্রতিনিধিত্ব করতে চলেছে। মাত্র ১৭ বছর বয়সে শুভ বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছে বাংলার কাছে ফুটবলের প্রকৃত মানেটা কী! এটা খেলার ঊর্ধ্বে। ফুটবল এখানে আবেগ। দেশের জন্য গর্বের মুহূর্ত।'

 

 

ব্রাজিল, জার্মানি, পর্তুগাল, চিন সহ ৬৪টি দেশ থেকে ৬৫৪ জন ফুটবলার অনলাইনে ট্রায়াল দিয়েছিল। ১২০০-র ওপর ভিডিও জমা পড়েছিল। বায়ার্নের চোখে লেগে যায় শুভকে। সব সময় গোল করার খিদে ও ঠিক পজিশনিং সেন্সের সুবাদেই শুভকে নির্বাচিত করেছেন বায়ার্নের কোচেরা। সেই ৬৫৪ জন প্রতিভাবান ফুটবলারের মধ্যে থেকে ১৫ জনকে চূড়ান্ত স্কোয়াডে রেখেছেন বায়ার্ন মিউনিখের কোচেরা। যার মধ্যে স্থান পেয়েছেন হাওড়ার শুভ।  বায়ার্ন মিউনিখের ওয়েবসাইটে ওয়ার্ল্ড স্কোয়াডের সদস্য হিসেবে শুভ পালের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। 

এই ফুটবলারদের চলতি মাসেই নিয়ে যাওয়া হবে মেক্সিকোতে। সেখানে দু-সপ্তাহের ট্রেনিং চলবে। তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলা হবে। তারপরই গোটা ওয়ার্ল্ড স্কোয়াড চলে যাবে মিউনিখে। আগস্ট মাসে মিউনিখে শুরু হবে মূল পর্বের ট্রেনিং। প্রশিক্ষণ দেবেন বায়ার্ন অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ ক্রিস্টোফার লোচ। সেখানে বায়ার্নের যুব দলের বিরুদ্ধেও খেলার সুযোগ পাবেন শুভরা। সব ঠিক থাকলে বায়ার্নের যুব দলেও সুযোগ পেয়ে যেতে পারেন তিনি। এরপর সে সুযোগ পাবে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্ব একাদশ বনাম অনূর্ধ্ব-১৯ বায়ার্ন মিউনিখের ম্যাচে খেলার। সেখানো ভালো খেলতে পারলেই আর পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না হাওড়া শুভকে।