বাস্তবে কোনভাবেই নয়, লিওনেল মেসিকে শুধু স্বপ্নে কিংবা প্লে স্টেশনে আটকানো সম্ভব ’- বার্সেলোনার বিপক্ষে ম্যাচ সম্পর্কে কথা বলতে এসে লিওনেল মেসি সম্পর্কে এই কথাটি বলেছিলেন নাপোলির কোচ জেনেরো গাত্তুসো। আজ বাস্তবে মেসিকে থামানোর সবরকম চেষ্টাই তিনি করিয়েছিলেন নাপোলিকে দিয়ে। কিন্তু মেসিকে যে থামানো যায়নি তা বলাই বাহুল্য।প্রথম পর্বের ম্যাচটি নাপোলির মাঠে প্রথম পর্বে ১–১ গোলে ড্র হওয়ায় কালরাতে ক্যাম্প ন্যু-এর মাঠে গোলশূন্য ড্র করতে পারলেও অ্যাওয়ে গোলে এগিয়ে থাকার সুবাদে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে চলে যেত বার্সেলোনা। কিন্তু ম্যাচ যেভাবে শুরু হয়েছিল তাতেই পরিস্কার হয়ে গিয়েছিল যে আর যাই হোক গোলশূন্য ম্যাচ হবে না। সেই সম্ভাবনা কেই সত্যি প্রমান করে কার্যকরী ফুটবলের বিজ্ঞাপন দেখিয়ে ৩–১ গোলে জয় নিয়েই কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করেছে মেসিরা।

 

 

আরও পড়ুনঃরোনাল্ডো-দিবালাদের নতুন কোচ হলেন কিংবদন্তী আন্দ্রে পিরলো

শুরুতে বার্সেলোনা ডিফেন্সে কাঁপুনি ধরিয়ে দিয়েছিল নাপোলি। কিক অফের দুই মিনিটেই দ্রায়াস মার্তিনেসের শট সাইডবারে লেগে বাইরে চলে যায়। শুরুর ১০ মিনিট দাপটটা ছিল চলতি মরশুমে ধারাবাহিকতার ধরে কাছ দিয়ে না যাওয়া ইতালিয়ান ক্লাবটির। কিন্তু ১০ মিনিটে বার্সার ফ্রেঞ্চ ডিফেন্ডার লেংলেট গোলের খাতা খুললে ম্যাচে এগিয়ে যাওয়ার সঙ্গে বার্সার পারফরম্যান্সের ধারও যায় বেড়ে। রাকিতিচের কর্নার থেকে হেডে বল জালে জড়িয়েছেন এই সেন্টারব্যাক।

 

 

আরও পড়ুনঃকরোনা প্রতিরোধক তোশক ব্যবহার করছেন মেসি, শুলেই নাকি গায়েব মহামারী ভাইরাস

আরও পড়ুনঃআইপিএলের আগেই জীবনের নতুন ইনিংস শুরু করলেন যুজবেন্দ্র চাহল

২৩ মিনিটে মেসি জাদু শুরু। ডানপ্রান্ত ডি-বক্সের বাইরে থেকে চারজনকে পেছনে ফেলে মাটিতে পড়ে গিয়েছিলেন। উঠে আধশোয়া অবস্থায় বাঁ পায়ের দুর্দান্ত প্লেসিংয়ে ফারপোস্ট দিয়ে জালে জড়িয়ে করেছেন ২–০। প্রথমার্ধের শেষ দিকে নাপোলি ডিফেন্ডার কালিদাউ কৌলিবেলি, মেসিকে ভুল ট্যাকল করায় পেনাল্টি পায় বার্সেলোনা। স্পটকিক থেকে গোলটি করেন লুইস সুয়ারেজ , ৩–০।প্রথমার্ধেরই অতিরিক্ত সময়ে পেনাল্টি থেকে কেবল ব্যবধান কমিয়েছে নাপোলি। ইনসিগ্নে করেন গোলটি। দ্বিতীয়ার্ধে নাপোলি বার্সাকে দারুণভাবে চেপে ধরলেও আর কোনো গোলই করতে পারেনি কোনো দল।