গত মরসুমে অনেক বছরের খরা কাটিয়ে মোহনবাগানকে কলকাতা লিগের ট্রফি এনে দিয়েছিলেন কোচ শঙ্করলাল চক্রবর্তী। কিন্তু আইলিগে ছবিটা অনেকটাই বদলে যায়। কোচের পদ থেকে সরে যেতে হয় শঙ্করকে। এবার শঙ্করলাল ভাবানীপুরের ক্লাবের কোচ। এবারও শুরু থেকেই তাঁর দল বেশ ছন্দে। লিগে দ্বিতীয় স্থানে আছে তারা। তবে সেটাও গোল পার্থক্যে। শীর্ষে থাকা পিয়ারলেসের সঙ্গে পয়েন্ট সমান 
ভাবানীপুরের। ছন্দে থাকা এমন একটা দলের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার পরীক্ষায় বসতে চলেছেন মোহনবাগানের স্প্যানিশ কিভু ভিকুনা। কল্যাণী স্টেডিয়ামে প্রাক্তন মোহনবাগান কোচের বিরুদ্ধে খেলা সবুজ মেরুনের। 

ডার্বি মোহনবাগান ফুটবলারদের পারফরম্যান্সে অনেকটাই উন্নতি চোখে পরেছে ফুটবল মহলের। তাই বড় ম্যাচ পরবর্তী মোহনবাগান, বাড়তি সমীহ আদায় করে নিচ্ছে ভবানীপুর কোচের কাছে। অন্য দিকে কিভুও গুরুত্ব দিচ্ছেন শঙ্করের মোহনবাগানে কোচিং করানোর অভিজ্ঞতাকে। তাহলে কি গতবার বাগানের কোচ থাকার সুবাদে এই ম্যাচে অ্যাডভান্টেজ শঙ্কর এমন তত্ত্ব মানতে নারাজ সবুজ মেরুনের স্প্যানিশ কোচ। ভিকুনার মতে গতবারের দলের সঙ্গে এবারের দলের অনেকটাই ফারাক। বর্তমানে ৪ ম্যাচে ৫ পয়েন্ট মোহনবাগানের। বৃহস্পতিবারের ম্যাচ জিততে পারলে লিগে বেশ কিছুটা উঠে আসের সুযোগ থাকছে তাদের সামনে। অন্যদিকে ভবানীপুরও মরিয়া নিজেদের স্থান ধরে রাখতে।

মোহনবাগানের চার বিদেশিই মাঠে নামতে তৈরি। ফার্ন গঞ্জালেসের সামান্য চোট থাকলেও তিনি বুধবার পুরও সময় অনুশীলন করলেন। হালকা চোট রয়েছে ভিপি সুয়েরের। তিনি নামতে পারবেন কি না, সেটা বৃহস্পতিবার সকালে ঠিক করবেন কিভু। ডার্বিতে প্রথম একাদশে না থাকলেও ভবানীপুরের বিরুদ্ধে প্রথম দলে ফিরতে পারেন সালভা চামারো। এদিকে ভবানীপুর কোচ শঙ্করলালের হাতে আছেন তিন জন বিদেশি ফুটবলার। তিন জনই খেলবেন। তবে চোটের জন্য সরণ সিংকে পাচ্ছে না ভাবানীপুর। দুই প্রধান ও এটিকেতে খেলা কিংশুক দেবনাথও আছেন ভবানীপুরে।