কলকাতা লিগে দাপুটে ফুটবল শুরু মোহনবাগানের। সেই দাপটে ভর করেই জর্জ টেলিগ্রাফকে ৪-০ গোলে হারিয়ে দিল সবুজ মেরুন শিবির।  দুই অর্ধেই প্রতিপক্ষের ওপর চাপ রেখে ম্যাচ থেকে তিন পয়েন্ট তুলে নিল কিভু ভিকুনার। রবিবার জয় মোহনবাগানকে পৌছে দিল লিগ শীর্ষে। ছয় ম্যাচে তিনটি জয়, দুটি ড্র ও একটি হার নিয়ে ১১ পয়েন্ট পৌছাল মেরিনার্সরা। রঞ্জন ভট্টাচার্যের জর্জ এবার লিগে বেশ ছন্দে ছিল। ইস্টবেঙ্গলকে হারিয়ে সারা ফলে দিয়েছিল তারা। কিন্তু মোহনবাগানের সামনে কোনও অস্ত্রই কাজ করল না জর্জ টেলিগ্রাফের।  তার ওপর প্রাক্তন বাগান ফুটবলার ডেনসন দেবদাস এদিন নেমেছিলেন জর্জে হয়ে। কিন্তু তেমন দাগ কাটতে পারলেন তারা। কাদা মাঠেও বাজি জিতে নিল কিভু ভিকুনার দল।

দুই অর্ধে দুটি করে গোল করল বাগান। ১৫ মিনিটে চুলোভার ক্রস থেকে প্রথম গোল করলেন সুয়ের ভিপি। ৩৫ মিনিটে গুরজিন্দরের সেন্টারে হেডে দারুণ গোল করলেন স্প্যানিশ স্ট্রাইকার সালভা চামারো। দ্বিতীয়ার্ধে বাগানের হয়ে তৃতীয় গোলটি করলেন তরুণ ফুটবলার নংদম্বা। তাঁকে গোলের বল সাজিয়ে দিয়েছিলেন চুলোভা। গোটা ম্যাচেই দুরন্ত ফুটবল খেললেন ইস্টবেঙ্গল থেকে মোহনবাগানে আসা এই পাহাড়ি ফুটবলার। ৮৪ মিনিটে নংদম্বার সেন্টারে ফ্লিক করে ব্যবধান চার শুন্য করলেন আরেক স্প্যানিশ ফুটবলার ফ্রান গঞ্জালেস। কলকাতা লিগে ১২ তারিখ আবার মাঠে নামছে মোহনবাগান, কল্যাণী স্টেডিয়ামে তাদের প্রতিপক্ষ এরিয়ান। 

এদিকে সোমবার কলকাতা লিগে নিজেদের ষষ্ঠ ম্যাচ খেলতে নামছে ইস্টবেঙ্গল। ঘরের মাঠে তাদের সামনে পিয়ারলেস। জয় মোহনবাগান জনতার আনন্দ মাটি করে ইস্টবেঙ্গলকে তুলে নিয়ে আসতে পারে লিগ শীর্ষে। কিন্তু ক্রোমাদের বিরুদ্ধে ম্যাচটা একেবারেই সহজ হবে না লাল হলুদ ব্রিগেডের কাছে। ইস্টবেঙ্গল কোচের প্রথম দলের আভাস পাওয়া কঠিন, একাধিক পরিকল্পনা নিয়ে তিনি প্রতি ম্যাচের প্রথম এগারোয় কিছু না কিছু বদল করছেন। তাই সোমবারের ম্যাচে গার্সিয়া কি চমক দেন সেটা দেখার অপেক্ষায় লাল হলুদ সমর্থকরা। বর্তমানে পাঁচ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট দাঁড়িয়ে লাল হলুদ ব্রিগেড। সোমবারের ম্যাচে জয় তাদের পৌছে দেবে ১৩ পয়েন্টে।