আইএসএলের দ্বিতীয় ম্যাচেও জয় অধরা এসসি ইস্টবেঙ্গলের। মুম্বই সিটি এফসির বিরুদ্ধে ৩-০ গোলে লজ্জার হার রবি ফাউলারের দলের। প্রথম ম্য়াচের থেকেও এদিন ছন্নছাড়া ফুটবল খেলল লাল-হলুদ শিবির। রক্ষণ, মাঝমাঠ থেকে আক্রমণ সব জায়গাতেই খামতি ধরা পড়ল লালহলুদের। মুম্বইয়ের হয়ে এদিন ম্যাচে জোড়া গোল করে নায়ক অ্যাডাম লে ফন্ড্রে। অপর গোলটি করেন হার্নান স্যান্টানা। এই ম্য়াচ জয়ের ফলে  ৩ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট লিগ টেবিলের শীর্ষে উঠে এল মুম্বই। অপরদিকে লিগ টেবিলের শেষ লাল-হলুদ।

এদিন টানটান উত্তেজনার মধ্যেই শুরু হয় দুই দলের খেলা। কিন্তু প্রথম থেকেই ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে প্রভাব বিস্তার করে খেলা শুরু করে লোবেরার দল। পাসিং ফুটবল কেলে বল পজিশন নিজেদের দখলে রেখে ইস্টবেঙ্গলের উপর চাপ সৃষ্টি করে মুম্বই সিটি এফসির প্লেয়াররা। কিন্তু প্রথমার্ধের গোল হজম করার আগেই আরও একটি ধাক্কা খায় লাল-হলুদ শিবির। চোট পেয়ে মাঠের বাইরে চলে যায় এসসি ইস্টবেঙ্গলের অধিনায়ক ড্যানি ফক্স। পরিবর্তে হিসেবে মাঠে নামেন রফিক। লাল-হলুদ অধিনায়ক মাঠ ছাড়ার পরই দলের রক্ষণকে ছন্নছাড়া দেখায়। তারই সুযোগ নিয়ে ম্য়াচের ২০ মিনিটে গোল করে মুম্বই সিটি এফসিকে এগিয়ে দেন অ্য়াডাম লে ফন্ড্রে। গোল খাওয়ার পর  দুই দলই আরও কয়েকটি সুযোগ তৈরি হলেও, কেউ গোলের মুখ খুলতে পারেনি। প্রথমার্ধে শুধু গোল করেই নয়, ৬৬ শতাংশ বল পজিশনও নিজেদের দখলে রাখে মুম্বই প্লেয়াররা। ফলে প্রথমার্ধের খেলা ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে থেকেই শেষ করে এসসি ইস্টবেঙ্গল।

দ্বিতীয়ার্ধে মশাল জ্বলে ওঠার অপেক্ষায় ছিলেন সমর্থকরা। কিন্তু পরের ৪৫ মিনিটে আরও নিরাশ করল ফাউলারের দল। ম্য়াচের ৪৮ মিনিটে লাল-হলুদ ডিফেন্ডারের ভুলে পেনাল্টি পেয়ে যায় মুম্বই। পেনাল্টি থেকে নিজের ও দলের দ্বিতীয় গোল করে যান ফন্ড্রে। ২ গোল হজম করার পর আরও কঙ্কালসার হয়ে পড়ে এসসি ইস্টবেঙ্গলের খেলা। ৫৮ মিনিটে মুম্বইয়ের দুরন্ত ঈআক্রমণ থেকে গোল করে যান হার্নান স্যান্টানা। এরপর দুই একাধিক সুযোগ পেলেও আর গোল হয়নি। পরপর দু ম্যাচ হেরে মানসিক দিক থেকে এসসি ইস্টবেঙ্গল অনেকটাই পিছিয়ে পড়ল বলে মনে করছেন ফুটবল বিশেষজ্ঞরা। এসসি ইস্টবেঙ্গলের পরবর্তী ম্য়াচ ৫ তারিখ নর্থইস্ট ইউনাইটেডের বিরুদ্ধে।