খেলোয়াড় এবং কোচিং স্টাফদের মধ্যে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচাতে অভিনব উদ্যোগ প্রিমিয়ার লিগ কর্তৃপক্ষের। প্রতিটি খেলোয়াড় এবং কোচিং স্টাফকে দফায় দফায় পরীক্ষা করা হচ্ছে বারবার। সম্প্রতি লিগ শুরু হওয়ার আগে অবধি খেলোয়াড়দের একসঙ্গে দলগত ভাবে ট্রেনিংয়ের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তার সাথে সাথে তাদের লালা এবং মূত্রর নমুনাও সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্যও পরীক্ষাকেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। 

আরও পড়ুনঃরাজীব গান্ধি খেলরত্নের জন্য মনোনীত হলেন রোহিত শর্মা,অর্জুন পুরষ্কারের জন্য ইশান্ত,শিখর ও দীপ্তি

আরও পড়ুনঃপরপর তিনবার রাজীব গান্ধি খেলরত্নের জন্য নীরজ চোপড়ার নাম মনোনীত করল এএফআই

এখনও অবধি খুশির খবর এই যে তিন চার দফা নিয়মিত পরীক্ষা করার পরও কোনও খেলোয়াড় এবং কোচিং স্টাফের মধ্যে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কোনও লক্ষণ ধরা পড়েনি। ব্রিটিশ সংবাদপত্র গুলিতে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী এখনও অবধি ১১৩০ টি স্যাম্পেল গবেষণাগারে পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে এবং সেই নমুনা গুলির মধ্যে একটিতেও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কোনোরকম লক্ষণ দেখা যায়নি। 

আরও পড়ুনঃবায়ার্নের বিরুদ্ধে হার অতীত,জয়ে ফিরতে মরিয়া বরুশিয়া ডর্টমুন্ড

এতরকম ঝামেলায় না গিয়ে প্রথমেই লিগ বাতিল করার কথা জানিয়ে দিয়েছিল নেদারল্যান্ডস এবং ফ্রেঞ্চ লিগ কর্তৃপক্ষ। ইংলিশ প্রিমিয়াম লিগেরও সেই নিয়ম মেনে চলা উচিত বলে মনে করেছিল অনেকে। কিন্তু শেষপর্যন্ত কিছুদিন অপেক্ষা করে লিগ পুনরায় চালু করার কথাই ভেবেছে প্রিমিয়ার লিগ। লিগ শুরু হওয়ায় লিগ শীর্ষে থাকা লিভারপুলের সামনে সুবর্ণ সুযোগ রয়েছে ৩০ বছর পর পুনরায় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের খেতাব দখল করার। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ম্যানচেস্টার সিটি-র থেকে ২৫ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে তারা