লকডাউনের পর নিজেদের তৃতীয় এবং লিগে নিজেদের ৩০ তম ম্যাচ খেলতে নেমেছিল বার্সেলোনা। শেষ দুই ম্যাচে মেসি এন্ড কোং প্রতিপক্ষ কে নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছেন। এদিনও একইভাবে খেলে প্রতিপক্ষকে দুরমুশ করে ৩ পয়েন্ট আদায় করে নিতে অসুবিধা হবে না কাতালুনিয়ান জায়েন্ট-দের, এমনটাই আশা করেছিলেন বার্সা ফ্যানরা। কিন্তু সেভিয়া দলের প্রত্যেকের মাথায় বোধহয় অন্য কিছু চলছিল। এস্তাদিও রামন স্যানসেজ পিজুয়ান স্টেডিয়াম শুক্রবার রাতে সাক্ষী থাকলো সেভিয়ার দাঁতে দাঁত চেপে লড়াইয়ের। 

আরও পড়ুনঃআন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের দিনে নস্টালজিক সৌরভ,ফিরে দেখা সেই ঐতিহাসিক ইনিংস

গোটা ম্যাচে ৬৩.৫ শতাংশ বল নিজেদের দখলে রেখেছিল বার্সা। কিন্তু তাতে লাভ হয়নি। উল্টে বেশ কয়েকবার প্রতি আক্রমণে উঠে এসে বার্সার চিন্তা বাড়িয়েছিল সেভিয়া। কিন্তু কখনো খেলোয়াড়দের স্বার্থপরতায় আবার কথনো ভুল সিদ্ধান্তে গোল অধরা থেকে যায়। নয়তো অ্যাওয়ে ম্যাচ থেকে শূন্য হাতেও ফিরতে হতে পারতো বার্সেলোনাকে। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ শেষ হয় গোলশূন্য ভাবে। ম্যাচে কয়েকবার তর্কাতর্কিতেও জড়ান ফুটবলার-রা। যদিও তার প্রভাব পড়েনি সেভিয়া ডিফেন্সের ওপর। অসাধারণ পারফরম্যান্স করেন সেভিয়ার সাইড-ব্যাক সার্জিও রেগুলিয়ন। 

আরও পড়ুনঃ২০ জুন ফিরছে সিঁরি আ,জেনে নিন ইতালিয়ান লিগের ইতিহাসের সেরা ১০ গোলদাতাদের

আরও পড়ুনঃ২০ তারিখ ফিরছে সিঁরি আ,চিনে নিন ইতালিয়ান লিগের ইতিহাসের সেরা ১০ গোলকিপারদের

লকডাউনের পর প্রথমবারের জন্য কোনও ম্যাচে গোল করতে ব্যর্থ হলেন মেসি। তবে খুব খারাপ খেলেননি তিনি। এই ড্র-য়ের ফলে ৩০ ম্যাচে ৬৫ পয়েন্ট নিয়ে লিগ শীর্ষেই থাকলো বার্সা। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদ নিজেদের পরের ম্যাচে জিতলেই ধরে ফেলবে তাদের। ৩০ ম্যাচে ৫২ পয়েন্ট নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে যোগ্যতা অর্জন পাকা করার দিকে আরও এক ধাপ এগোলো সেভিয়া।