করোনা আতঙ্কে কাটিয়ে বিশ্ব জুড়ে ধীরে ধীরে ফিরছে সব ধরনের স্পোর্টিং ইভেন্ট। জার্মানির বুন্দাসলিগা দিয়ে ফিরেছিল ফুটবল। তারপর ফিরেছে লা লিগা, ইপিএল, সিরি আঁ সহ একাধিক বিশ্বের নামকরা ফুটবল লিগ। ৮ জুলাই থেকে ইংল্যান্ড বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ দিয়ে ফিরেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটও। কিন্তু সব ক্ষেত্রেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে কড়া নিরাপত্তার ঘেরাটোপে চলেছে খেলা। কিন্তু কখনও শুনেছেন করোনা আক্রান্ত প্লেয়ারদের নিয়েই শুরু হল ফুটবল লিগ। শুনে অবাক হলেন? কিন্তু এমনই ভয়াবহ কাণ্ড ঘটেছে আফ্রিকার জাম্বিয়ান সুপার লিগে। 

আরও পড়ুনঃএবার যুব অলিম্পিকেও করোনার প্রকোপ,চার বছর পিছিয়ে গেল প্রতিযোগিতা

জানা গিয়েছে জাম্বিয়ান সুপার লিগের ২০১৯-২০ মরশুম পুনরায় শুরু হওয়ার মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে শনিবার সকালে ফরেস্ট রেঞ্জার্স জানায়, ফুটবলার ও স্টাফ মিলিয়ে তাদের দলের ৫৮ জনের কোভিড-১৯ টেস্ট করানো হয়েছিল। তাঁদের মধ্যে ২৮ জন পজিটিভ হয়েছেন। এঁদের মধ্যে ১৭ জনই দলের ফুটবলার। লিগ কর্তৃপক্ষকে সব কিছু জানায় ক্লাব। কিন্তু কর্তৃপক্ষ বলে আর কিছু করার নেই। এই অবস্থাতেই খেলতে হবে। ক্লাবের মুখপাত্র ক্রিস্টিনা জুলু বলেছেন, জানাকোর বিরুদ্ধে ম্যাচ ছিল আমাদের। লিগ কর্তৃপক্ষ জানায়, সূচি মেনেই ম্যাচ হবে। আমরা না খেললে ওয়াকওভার দিয়ে দেওয়া হবে জানকোকে। 

আরও পড়ুনঃকরোনার জের, একাধিক ঘরোয়া ক্রিকেট টুর্নামেন্ট বাতিল করতে পারে বিসিসিআই

আরও পড়ুনঃশেষ ম্যাচে জিতে এই মরশুমের লা-লিগা অভিযান শেষ করার লক্ষ্যে বার্সেলোনা

কিন্তু কীভাবে এত বড়ো ঝুঁকি নিল জাম্বিয়ান সুপার লিগ কর্তৃপক্ষ তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। করোনা আক্রান্তদের তো বটেই অন্যান্যদের জীবনও এই ঘটনার জন্য বিপন্ন হতে পারে। জানা গিয়েছে, প্লেয়ারদের স্বাস্থ্যের থেকে লিগ শেষ করাকেই বেশি গুরুত্ব দেন জাম্বিয়ান সুপার লিগ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তাঁদের এমন সিদ্ধান্তের জন্য যে প্রাণহানিও হতে পারে সেদিকে কর্নপাত করেননি তারা। য়েই ঘটনা সামনে আসার পর সমালোচনার ঝড় গোটা ফুটবল বিশ্বে।