18

গত জুলাই  মাসে পুত্র সন্তানের বাবা হন তারকা ভারতীয় ক্রিকেটার হরভজন সিংয়ের ঘর আলো করে এসেছে পুত্র সন্তান। তার আগে একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে হরভজন সিং ও গীতা বসরার।  সুখের সংসার তাদের।

Subscribe to get breaking news alerts

28

বয়স ৪০ পেরোলেও এখনও অবসর ঘোষণা করেননি  ভারতীয় তথা বিশ্ব ক্রিকেটের অন্য়তম সেরা স্পিনার। দীর্ঘ বছর ধরে ভারতীয় দলের বাইরে রয়েছেন তিনি। আইপিএলেও কেকেআর দলে থাকলেও খুব একটা সুযোগ পাননি।

38

এবার নিজের বাড়ি বিক্রি করে সংবাদ শিরোনামে হরভজন সিং। তার মুম্বইয়ে একটি বাড়ি বিক্রি করেছেন ভাজ্জি।  হরভজনের সেই বাড়ির দাম ১৭ কোটি ৫৮ লক্ষ। হস্তান্তর বাবদ (স্ট্যাম্প ডিউটি) ৮৭ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা কর দিতে হয়েছে হরভজনকে।
 

48

মুম্বইয়ের আন্ধেরিতে ২৮৩০ বর্গ ফিটের একটি বাড়ি ছিল হরভজনের। ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে সেই বাড়ি কিনেছিলেন ভারতীয় স্পিনার। ২০১৮ সালের মার্চ মাসে তাঁর নামে নথিভুক্ত হয় সেই বাড়িটি। রুস্তমজি এলিমেন্টস নামক একটি আবাসন নির্মাণ সংস্থার থেকে এই বাড়ি কিনেছিলেন হরভজন।
 

58

১৪.৫ কোটি টাকায় বাড়িটি কিনেছিলেন। বর্তমানে বাড়িটি বিক্রি করে মাত্র ৫২ লক্ষ্য টাকা লাভ করেছেন তারকা স্পিনার। আপনাদের প্রশ্ন জাগতেই পারে ১৪.৫ কোটি টাকায়  কিনে ১৭ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকায় বিক্রি করলে কী করে ৫২ লক্ষ টাকা লাভ হয়। 
 

68

হরভজন সিং যে অ্যাপার্টমেন্টটি বিক্রি করেছিলেন সেটি রুস্তমজি এলিমেন্টস বিল্ডিংয়ের জি উইংয়ের 9 তলায় অবস্থিত। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ভবনটি একটি ওসি পায়। অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রি সংক্রান্ত নথিগুলি ১৮ নভেম্বর নিবন্ধিত হয়েছিল। অ্যাপার্টমেন্টের বিক্রয় দলিল নিবন্ধনের জন্য ৮৭.৯ লক্ষ টাকা স্ট্যাম্প ডিউটি ​​দিতে হয়েছিল।

78

যদিও হরভজন সিং নিজে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে অ্যাপার্টমেন্টটি কিনেছিলেন, তিনি মার্চ ২০১৮-এ চুক্তিটি নথিভুক্ত করেছিলেন। ক্রিকেটারকে বিল্ডারকে মোট ১৪.৫ কোটি টাকা দিতে হয়েছিল। হরভজন সিং যখন ডেভেলপারের কাছ থেকে অ্যাপার্টমেন্টটি কিনেছিলেন তখন তিনি ১০.১২ কোটি টাকা দিয়েছিলেন এবং বাকি ৪.৩৩ কোটি এবং ২.৪২ কোটি টাকা বকেয়া ছিল।

88

এই চুক্তিতে, নিবন্ধন নথি অনুসারে, হরভজন সিং তার অ্যাকাউন্টে সরাসরি রিয়েল টাইম গ্রস সেটেলমেন্টের মাধ্যমে ১০.৬৪ কোটি পেয়েছেন। বাকি পরিমাণ অর্থ ক্রেতাকে বকেয়া হিসেবে এবং ডেভেলপারের বকেয়া অর্থ প্রদান করা হয়েছে। যেই কারণেই ৫২ লক্ষ টাকা লাভ হয়েছে ভাজ্জির। বাড়িটি নিয়ে নানারকম  সমস্য়া হয়েছিল বলেই বিক্রি করে দিয়েছেন হরভজন।