করোনা আতঙ্কে ওয়ার্ক ফ্রম হোম, সুষ্ঠভাবে কাজ করতে মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি

First Published 23, Mar 2020, 2:39 PM IST

করোনাভাইরাসে আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। দিনে দিনে এই মারণ ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর প্রভাবে রাজ্য-সহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস, পাবলিক প্লেসগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে সংস্থাগুলি বাড়ি থেকে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশাপাশি প্রায় গোটা দেশ লকডাউনের পথে হাঁটার সিদ্ধান্ত নিলে, বাড়ির বাইরে বেড়নোতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তাই এই মূহূর্তে বাড়ি থেকে কাজ করাই নিরাপদ বলে মনে করছে গোটা দেশ। তবে অফিসের কাজ আর বাড়ি থেকে কাজ করার জন্য চিন্তা থাকতেই পার। বিশেষ করে এটা যাদের পক্ষে প্রথমবার তাঁদের প্রচুর সমস্যার সম্মুখীন হয়ে তবেই কাজের প্রতি মনোযোগ দিতে পারবেন। তাই যাতে অফিসের মতই বাড়ি থেকে অনায়াসে কাজ করা যায় তার জন্য রইল কিছু জরুরি টিপস।
 

কাজে বসার জায়গা ঠিক করে নিন: আমরা যখন বাড়ি থেকে কাজ করি তখন আমরা বিছানায় আরাম করে বসে ল্যাপটপ নিয়ে কাজ করি। কিন্তু এটা না করে আপনি আপনার জন্য একটি নির্দিষ্ট কাজের জায়গা নির্বাচন করে নিন। এতেই আপনার কাজের প্রতি মনোযোগ বাড়বে। যেমন ধরুন লিভিং রুম বা শোয়ার ঘরের এক কোণেও আপনার কাজ করার জন্য জায়গাটি বেছে নিন। ঘরের এমনই একটি জায়গা বেঁছে নিন যেখানে আপনি শান্তিতে বসে কাজ করতে পারবেন।

কাজে বসার জায়গা ঠিক করে নিন: আমরা যখন বাড়ি থেকে কাজ করি তখন আমরা বিছানায় আরাম করে বসে ল্যাপটপ নিয়ে কাজ করি। কিন্তু এটা না করে আপনি আপনার জন্য একটি নির্দিষ্ট কাজের জায়গা নির্বাচন করে নিন। এতেই আপনার কাজের প্রতি মনোযোগ বাড়বে। যেমন ধরুন লিভিং রুম বা শোয়ার ঘরের এক কোণেও আপনার কাজ করার জন্য জায়গাটি বেছে নিন। ঘরের এমনই একটি জায়গা বেঁছে নিন যেখানে আপনি শান্তিতে বসে কাজ করতে পারবেন।

ফোন এবং ল্যাপটপে চার্জ দিয়ে রাখুন: কাজে বসার আগে থেকেই আপনার ফোন বা ল্যাপটপে চার্জ আছে কি না তা দেখে নিন। যেহেতু বাড়ি থেকে কাজ তাই কারেন্ট অফ হলেও যাতে কিছুটা হাতে সময় পান সে বিষয়ে সাবধান হওয়া প্রয়োজন আগে থেকেই। এছাড়া গুরুত্বপূর্ণ কাজের সময় কারেন্ট অফ হলে কাজের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা এড়াতেই এই সাবধানতা অবলম্বন।

ফোন এবং ল্যাপটপে চার্জ দিয়ে রাখুন: কাজে বসার আগে থেকেই আপনার ফোন বা ল্যাপটপে চার্জ আছে কি না তা দেখে নিন। যেহেতু বাড়ি থেকে কাজ তাই কারেন্ট অফ হলেও যাতে কিছুটা হাতে সময় পান সে বিষয়ে সাবধান হওয়া প্রয়োজন আগে থেকেই। এছাড়া গুরুত্বপূর্ণ কাজের সময় কারেন্ট অফ হলে কাজের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা এড়াতেই এই সাবধানতা অবলম্বন।

একটি নির্দিষ্ট টাইম টেবিল তৈরি করে করুন: বাড়িতে থেকে কাজ করা সত্যিই কার্যকর এবং ফলপ্রসূ হয়। তবে তা অনেক সময় উর্দ্ধস্তন কর্মচারীরা মেনে নিতে চান না। অনেকেরই এই বিষয়ে ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে যেহেতু আপনি বাড়ি থেকে কাজ করছেন ফলে আপনি আপনার কাজের ১০০ শতাংশ দিতে অক্ষম হবেন। তাই এই ধারণা ভাঙ্গার মক্ষোম সুযোগ এটাই। যদি আপনি একটি যথাযথ রুটিন মেনে চলেন, তবে আপনারই সুবিধা। কোন সময়ে ব্রেক নেবেন তাও অন্তর্ভুক্ত করে নিন। এর ফলে আপনার কাজের সময়সীমা এবং টার্গেট পূরণ করতে সক্ষম হবেন সহজেই।

একটি নির্দিষ্ট টাইম টেবিল তৈরি করে করুন: বাড়িতে থেকে কাজ করা সত্যিই কার্যকর এবং ফলপ্রসূ হয়। তবে তা অনেক সময় উর্দ্ধস্তন কর্মচারীরা মেনে নিতে চান না। অনেকেরই এই বিষয়ে ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে যেহেতু আপনি বাড়ি থেকে কাজ করছেন ফলে আপনি আপনার কাজের ১০০ শতাংশ দিতে অক্ষম হবেন। তাই এই ধারণা ভাঙ্গার মক্ষোম সুযোগ এটাই। যদি আপনি একটি যথাযথ রুটিন মেনে চলেন, তবে আপনারই সুবিধা। কোন সময়ে ব্রেক নেবেন তাও অন্তর্ভুক্ত করে নিন। এর ফলে আপনার কাজের সময়সীমা এবং টার্গেট পূরণ করতে সক্ষম হবেন সহজেই।

পরিবারের সদস্যদের আপনার কাজের বিষয়টি বোঝান: করোনা আতঙ্কের ফলে যেহেতু আপনি হঠাৎ করেই বাড়িতে থেকেও অফিসের কাজে ব্যস্ত থাকছেন, সেটা আপনার পরিবারের পক্ষে প্রথম দিকে বুঝতে অসুবিধে হতে পারে। অনেকদিন পর আপনাকে এতটা সময় বাড়িতে পেয়েও তারাও আপনার সঙ্গে একটু সময় কাটাতে চাইবেন। আর এই বিষয়টি খুবই স্বাভাবিক। যা আপনি কোনওভাবে চাইলেও আপনার কর্মক্ষেত্রে এই বিষয় বা অনুভূতিগুলি বোঝাতে পারবেন না। তাই প্রথম দিকে বাড়িতে কাজ করার ক্ষেত্রে অনেক বাধার সম্মুখীন হবেন। তাই শান্তিপূর্ণ এবং পেশাদার পরিবেশ পেতে আপনার কাজের বিষয়টি পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করে নিন।

পরিবারের সদস্যদের আপনার কাজের বিষয়টি বোঝান: করোনা আতঙ্কের ফলে যেহেতু আপনি হঠাৎ করেই বাড়িতে থেকেও অফিসের কাজে ব্যস্ত থাকছেন, সেটা আপনার পরিবারের পক্ষে প্রথম দিকে বুঝতে অসুবিধে হতে পারে। অনেকদিন পর আপনাকে এতটা সময় বাড়িতে পেয়েও তারাও আপনার সঙ্গে একটু সময় কাটাতে চাইবেন। আর এই বিষয়টি খুবই স্বাভাবিক। যা আপনি কোনওভাবে চাইলেও আপনার কর্মক্ষেত্রে এই বিষয় বা অনুভূতিগুলি বোঝাতে পারবেন না। তাই প্রথম দিকে বাড়িতে কাজ করার ক্ষেত্রে অনেক বাধার সম্মুখীন হবেন। তাই শান্তিপূর্ণ এবং পেশাদার পরিবেশ পেতে আপনার কাজের বিষয়টি পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করে নিন।

কাজের নীতি নিয়ম মেনে চলুন:  বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করার সময় আপনার কাজের নৈতিকতা এবং শিষ্টাচারগুলো অনুসরণ করা প্রয়োজন। আপনি যদি চ্যাট, ভিডিও কল বা মেইল করতে চান-তবে সেই সময় এর জন্য উপযুক্ত কি না-তার দিকে খেয়াল রাখুন। এ ছাড়া আপনি যদি অনলাইন মিটিং-এ অংশ নেন, তবে আপনার নাইট স্যুট বা ঘরের সাধারণ পোশাক এড়িয়ে চলুন।

কাজের নীতি নিয়ম মেনে চলুন: বাড়ি থেকে অফিসের কাজ করার সময় আপনার কাজের নৈতিকতা এবং শিষ্টাচারগুলো অনুসরণ করা প্রয়োজন। আপনি যদি চ্যাট, ভিডিও কল বা মেইল করতে চান-তবে সেই সময় এর জন্য উপযুক্ত কি না-তার দিকে খেয়াল রাখুন। এ ছাড়া আপনি যদি অনলাইন মিটিং-এ অংশ নেন, তবে আপনার নাইট স্যুট বা ঘরের সাধারণ পোশাক এড়িয়ে চলুন।

আপনার টিমের সঙ্গে সংযুক্ত থাকুন:  এমন একটি জটিল সময়ে আপনি যখন বাড়ি থেকে কাজ করছেন তখন আপনি কতটা কাজ করছেন বা কত সময় অবধি কাজ করছেন তা জানাতে আপনার অফিসের সদস্যদের সঙ্গে যুক্ত থাকা আবশ্যক। আপনি যদি ভাবেন, বাড়ি থেকে কাজ করা আপনাকে আপনার টিমের সদস্যদের থেকে আলাদা করে দেবে, তবে এটি ভুল ভাবনা। আপনি তাদের সঙ্গে ভিডিও কল, ইমেইল এবং মেসেজের মাধ্যমে যুক্ত থাকতে পারেন। এ ছাড়া আপনি চ্যাটের মাধ্যমে সবকিছু শেয়ার করতে পারেন এবং কাজের বিষয়ে আলোচনা করতে পারেন।

আপনার টিমের সঙ্গে সংযুক্ত থাকুন: এমন একটি জটিল সময়ে আপনি যখন বাড়ি থেকে কাজ করছেন তখন আপনি কতটা কাজ করছেন বা কত সময় অবধি কাজ করছেন তা জানাতে আপনার অফিসের সদস্যদের সঙ্গে যুক্ত থাকা আবশ্যক। আপনি যদি ভাবেন, বাড়ি থেকে কাজ করা আপনাকে আপনার টিমের সদস্যদের থেকে আলাদা করে দেবে, তবে এটি ভুল ভাবনা। আপনি তাদের সঙ্গে ভিডিও কল, ইমেইল এবং মেসেজের মাধ্যমে যুক্ত থাকতে পারেন। এ ছাড়া আপনি চ্যাটের মাধ্যমে সবকিছু শেয়ার করতে পারেন এবং কাজের বিষয়ে আলোচনা করতে পারেন।

টিমের সদস্যদের উৎসাহিত করুন:  যেহেতু করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ে প্রত্যেকেই কম-বেশি আতঙ্কিত এবং অসুস্থ, তাই তাদেরকে কাজের প্রতি উৎসাহিত করা প্রয়োজন। সহকর্মীদের বা জুনিয়রদের কাজের সামান্য ভুলের জন্য তাদের নেতিবাচক মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন। উল্টে তাঁদের যাতে কাজের প্রতি আরও উৎসাহ বাড়ে সে বিষয়ে নজর দিন। এতে বাড়িতে থেকেও আরও ভালোভাবে কাজ করতে পারবেন।

টিমের সদস্যদের উৎসাহিত করুন: যেহেতু করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ে প্রত্যেকেই কম-বেশি আতঙ্কিত এবং অসুস্থ, তাই তাদেরকে কাজের প্রতি উৎসাহিত করা প্রয়োজন। সহকর্মীদের বা জুনিয়রদের কাজের সামান্য ভুলের জন্য তাদের নেতিবাচক মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন। উল্টে তাঁদের যাতে কাজের প্রতি আরও উৎসাহ বাড়ে সে বিষয়ে নজর দিন। এতে বাড়িতে থেকেও আরও ভালোভাবে কাজ করতে পারবেন।

loader