তুলসীর পাতা গুণাবলী সম্বন্ধে সকলেরই জানা। তুলসী পাতা খেলে শুধুমাত্র যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় তা নয়, অনেক রোগ থেকে মুক্তিও পাওয়া যায়। করোনার মহামারির সময়, লোকেরা তুলসী পাতার গরম জলে ফুটিয়ে প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে পান করেছেন। তবে আপনি কি জানেন যে, তুলসী পাতা দুধের সঙ্গে ফুটিয়ে নিলে তা আরও উপকারী করে তোলা যায়। এই পানীয় আপনাকে অনেক রোগের সঙ্গে লড়তে সাহায্য করবে। জেনে নিন তুলসীর দুধ পান করে আপনি কোন রোগগুলি এড়াতে পারেন এবং এটি তৈরি করার সঠিক উপায় এবং পান করার সঠিক সময় কোনটি।

কীভাবে তুলসীর দুধ বানাবেন-

তুলসীর দুধ তৈরি করতে প্রথমে আপনাকে দেড় গ্লাস দুধ ফোটাতে হবে। দুধ ফুটে যাওয়ার পরে এতে ৮ থেকে ১০টা তুলসী পাতা রেখে কিছুক্ষণ ফুটিয়ে নিন। দুধ যখন এক গ্লাসের মতো হবে তখন হালকা গরম থাকা অবস্থায় তা পান করতে হবে। মনে রাখবেন যে এই দুধের নিয়মিত সেবন আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে। তুলসীর দুধ মাইগ্রেন থেকে মুক্তি দেয়। আপনি যদি দীর্ঘদিন ধরে মাইগ্রেন এফ সমস্যায় ভুগে থাকেন তবে প্রতিদিন চায়ের পরিবর্তে এই পানীয় পান করতে পারেন।

স্ট্রেস এবং অবসাদ -

তুলসী পাতাগুলিতে কেবল ঔষধি গুণ থাকে না তবে এই পাতাগুলিতে নিরাময়ের বৈশিষ্ট্যও রয়েছে। আপনি যদি নিজের কাজ নিয়েও উদ্বেগে থাকেন বা পারিবারিক কলহের জেরে হতাশায় ভুগে থাকেন তবে এই পানীয় পান করুন। এটি অবসাদের সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করবে।

অনাক্রম্যতা বাড়াতে সহায়তা করে-

করোনার মহামারির সময়ে প্রতিটি ব্যক্তির প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির বিষয়ে যত্নবান হওয়া প্রয়োজন। আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হলেই কোনও রোগ আপনাকে ঘিরে ফেলতে পারে। এক্ষেত্রে তুলসী পাতায় উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। এ ছাড়া তুলসীতে উপস্থিত অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিভাইরাল বৈশিষ্ট্যও সর্দি, কাশির মত সমস্যা থেকে দূরে রাখে। এই পানীয় পান করলে হার্টও সুস্থ থাকে। প্রতিদিন খালি পেটে তুলসীর দুধ পান করা হৃদরোগীদের অনেক উপকার করে। এমনকী শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায়ও দারুন কাজ দেয় তুলসীর দুধ। এই ঘরোয়া পদ্ধতিটি পরিবর্তিত আবহাওয়ার কারণে হওয়া শারীরিক অসুস্থতার হাত থেকেও রক্ষা করে।