একটানা বাড়িতে বসে রয়েছেন। রাস্তায় বেরিয়ে যে একটু হাঁটাহাঁটি করবেন তারও উপায় নেই বর্তমান  পরিস্থিতিতে। সকলেই এখন গৃহবন্দি। একটানা ২১ দিন ঘরে থাকতে নির্দেশ দিয়েছে সরকার। আর তা সকলকে মেনে চলতেই হবে। তা নাহলে সামনে অপেক্ষা করছে আরও বড় বিপদ। কিন্তু বাড়িতে থেকে হাঁটুর ব্যাথা, কোমরের ব্যথা এককথায় সমস্ত জয়েন্টের ব্যথা গুলোই যেন বেড়েছে। হাঁটু বা গাটের ব্যথা র সমস্যা নিয়ে অনেকেই জেরবার হয়ে পড়ছেন। 

আরও পড়ুন-স্টে হোমে থেকেই কাজে লাগান সময়, চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পান মাত্র ১ সপ্তাহে...

অনেকেরই সারা বছর এই ব্যথা কমবেশি হয়ে থাকে। কিন্তু একটাকা রেস্টে থেকেই যেন ব্যথাটা যেন দ্বিগুন বেড়ে যাচ্ছে। আর তখনই  পেইনকিলারের উপর প্রত্যেকেই যেন আসক্ত হয়ে পড়ছেন। কারণ এখন রাস্তায় বেরিয়ে ডাক্তার দেখাতে যাওয়াটাও যেন সমস্যার। তাই বাড়িতে যতটা সম্ভব কমানো যায় তাতেই ব্যস্ত প্রত্যেকে। কিন্তু বেশি পেনকিলার খাওয়া শরীরের জন্য যথেষ্ঠ ক্ষতিকর। তাই ওষুধ ভুলে বাড়ির টোটকা কাজে লাগান। রইল ব্যথা সারানোর কয়েকটি অব্যর্থ  উপায়।

নুন জলের সেক

সৈন্ধব নুন যে কোনও ব্যথাতেই খুবই কার্যকরী। ছোট এক কাপ সৈন্ধব নুন জলের মধ্যে গুলিয়ে নিন। এবার সেটি ফুটিয়ে নিয়ে ব্যথার জায়গায় ৩০ মিনিট ধরে সেক দিন। এতেও কিন্তু দ্রুত ব্যথা সেরে যাবে।

ঠান্ডা-গরম জলের সেক

ঠান্ডা -গরম জল দিয়ে সেক দিলে যে কোনও ব্যথা নিমেষেই কমে যায় এই কথা আমরা প্রত্যেকেই জানি। ব্যথার জায়গায় একবার হট ওয়াটার ব্যাগ দিয়ে সেক দিন আবার ৫ মিনিট পর সেই জায়গায় বরফ দিন।  প্রায় ৩০ মিনিট ধরে  এই ভাবে সেক দিলে অনায়াসেই গাঁটের ব্যথা  কমে যাবে।


হলুদ-আদার মিশ্রণ

২ কাপ জলের সঙ্গে কিছুটা হলুদ ও আদা ভাল করে ফুটিয়ে নিন। তারপর সেই মিশ্রণটি যখন হাফ কাপ হয়ে যাবে তখন এর মধ্যে ১ চামচ মধু মিশিয়ে নিন। দিনে দুবার এটি খেতে পারলে আর কিন্তু পেইন কিলার খেতে হবে না। 

মেথির জল

 দ্রুত ব্যথা কমানোর সহজ উপায় হল মেথি। শুধু রান্নাতেই নয় মেথির অনেক গুনাগুণ রয়েছে। যারা ব্যথায় দীর্ঘদিন ধরে ভুগছেন তারা  নিয়মিত মেথি ভেজানো জল খান। একটি গ্লাসে সারা রাত এক চামচ মেথি ভিজিয়ে দিন। পরের দিন সকালবেলা ওই মেথি ভেজানো জলটা খান। এতে গাটের ব্যথা দ্রুত কমে যাবে।


পিপারমিন্ট এবং ইউক্যালিপটাস তেলের মিশ্রণ

ব্যথা সারানোর ক্ষেত্রে পিপারমিন্ট এবং ইউক্যালিপটাস তেলের মিশ্রণ অত্যন্ত কার্যকরী। নারকেল তেল, অলিভ অয়েলের সঙ্গে ৫-৬  ফোটা পিপারমিন্ট এবং ইউক্যালিপটাস তেলের মিশ্রণ ভাল করে মিশিয়ে নিয়ে ব্যথার জায়গায় মালিশ করুন। দিনে দুবার এই তেল মালিশ করুন দেখবেন ভাল ফল পাবেন।


লঙ্কাগুঁড়ো এবং নারকেল তেলের মিশ্রণ

অনেকেই ভাবছেন ব্যথা সারাতে লঙ্কাগুঁড়ো আবার কী কাজে লাগে। কিন্তু লঙ্কাগুড়ো গাঁটের ব্যথা খুবই উপকারী। চিকিৎসকদের মতে, গাঁটের ব্যথা কমাতে ক্যাপসাইসিন খুবই কার্যকরী উপাদান। আর লাল লঙ্কার গুঁড়োতে প্রচুর পরিমাণে ক্যাপসাইসিন থাকে। নারকেল তেলের সঙ্গে লঙ্কার গুঁড়ো মিশিয়ে অন্তত আধ ঘন্টা মালিশ করুন। তারপর উষ্ণ গরম জল দিয়ে জায়গাটা ভাল করে ধুয়ে নিন। দেখবেন অনেকটা আরাম লাগছে।

 

 

আরও পড়ুন-করোনা মোকাবিলায় নতুন উদ্যোগ, বিশ্বজুড়ে বিনামূল্য করা হল নিষিদ্ধ ছবি দেখা...

আরও পড়ুন-করোনা সন্দেহে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন, কিন্তু মেনে চলছেন তো এই নিয়মগুলো...

আরও পড়ুন-করোনা মোকাবিলায় বিপুল খরচ, নতুন নিয়োগ বন্ধের সিদ্ধান্ত রাজ্যের...