করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের তরফে নির্দেশ বাড়িতে থাকার। টানা ২১ দিন বাড়ির বাইরে যাওয়া নিষিদ্ধ। তাই এমন পরিস্থিতিতে পার্লারে গিয়ে ট্রিটমেন্ট করারও কোনও উপায় নেই। পাশাপাশি বহু দোকান বন্ধ থাকার কারণে প্রসাধনী দ্রব্য কেনার উপায় খুবই কম। তাই এমন পরিস্থিতিতে নিজের যত্ন নিতে হবে নিজেকেই। আর তাও ঘরোয়া পদ্ধতিতে।  আর চুলে উঠি গিয়ে মাথায় টাক পড়ার সমস্যা দিনে দিনে বাড়তে থাকলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিন। এই সমস্যার সমাধান করতে প্রথমেই ব্যয়বহুল চিকিৎসায় না গিয়ে ব্যবহার করুন ঘরোয়া টোটকা। 

আরও পড়ুন- লকডাউনে ঘরে থেকেই কমিয়ে ফেলুন বাড়তি ওজন, মেনে চলুন অব্যর্থ এই ঘরোয়া টোটকা

জানলে অবাক হবেন খুব সহজলভ্য ঘরোয়া জিনিস দিয়ে  খুব অনায়াসেই আপনি চুল উঠে যাওয়ার সমস্যায় ব্যবহার করতে পারেন। মাত্র এক সপ্তাহ ব্যবহার করতে পারলেই নিজেই হাতে-নাতে ফল পাবেন। তবে জেনে নেওয়া যাক কিভাবে আপনি এই সমস্যার মোকাবেলা করতে পারবেন ঘরে থেকেই। আর এর জন্য আপনাকে ব্যবহার করতে হবে  তেজপাতা। খুসকির কারণে অনেক সময় চুল উঠতে থাকে। সেই সমস্যাতে আপনি তেজপাতা ব্যবহার করতে পারেন। কয়েকটি তেজপাতা গুঁড়ো করে নিয়ে তাতে নারকেল তেল বা অলিভ ওয়েল-এর সঙ্গে মিশিয়ে নিন। তেজপাতার গুড়ো মেশানো তেল ফুটিয়ে নিয়ে চুলের গোড়ায় খুব ভালো করে ম্যাসাজ করুন। এই তেল এক ঘন্টা রেখে শ্যাম্পু করে নিন। সেই সঙ্গে কন্ডিশনার ও করতে পারেন। এই পদ্ধতিতে আপনি খুসকির হাত থেকেও রক্ষা পাবেন সহজেই।

আরও পড়ুন- নিজামুদ্দিন যোগ এবার পুরুলিয়ায়, তথ্য প্রকাশ করলেন খোদ পুলিশ সুপার

আরও পড়ুন- করোনা মোকাবিলায় লকডাউন মেনেই স্বাভাবিক জীবন, কী করবেন রইল তারই টিপস

আরও পড়ুন- করোনা সন্দেহে আটক মৃতদেহের রিপোর্ট নেগেটিভ, তবু আইসোলেশনে ছেলে-দিদিমা ও কাকা

এছাড়া ৯-১০টি তেজপাতা ২ লিটার জলে একই পদ্ধতিতে ফুটিয়ে নিয়ে, একটি স্প্রে কন্টেনারে ভরে রেখে দিন। প্রতিদিন পুরো চুলে স্প্রে করে, ভাল করে আঁচড়ে নিন। এক ঘন্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন। এই জল প্রতিদিন ব্যবহার করতে পারেন। এতে চুল ওঠার সমস্যা অনেক কমে আসবে। ১ লিটার জলে দু থেকে চারটি তেজপাতা নিয়ে ফুটিয়ে নিন। ফুটে উঠলে তেজ পাতা গুলো তুলে নিন। চুলে শ্যাম্পু করার পর ধুয়ে নিয়ে এই জল দিয়ে কিছুক্ষণ রেখে পরিষ্কার জল দিয়ে আবার ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার তেজপাতার এই নির্যাস ব্যবহার করলে চুলের রুক্ষতাও দূর হবে, মাত্র ১ সপ্তাহে প্রতিদিন ব্যবহার করলে চুল ওঠার সমস্যাও অনেক কমে যাবে।