করোনার ওষুধ তৈরির উপায় বের করলেন ভারতীয় বিজ্ঞানী। ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক-গবেষক ডক্টর আনন্দশঙ্কর রায় দাবি করেছেন, তিনি ও তাঁর টিম এমন শতাধিক কম্পাউন্ডের খোঁজ পেয়েছেন যাদের করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক হিসেবে কাজে লাগানো যেতে পারে।

আরও পড়ুন, গনেশ পুজোর আগের দু'দিন লকডাউন, কেনাকাটি করতে গিয়ে হিমশিম শহরবাসীর


যে উপাদান বা কম্পাউন্ড থেকে এমন ওষুধ তৈরি হতে পারে তাদের বলা হয় ড্রাগ ক্যান্ডিডেট। ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক-গবেষক ডক্টর আনন্দশঙ্কর রায় দাবি করেছেন, তিনি ও তাঁর টিম এমন শতাধিক কম্পাউন্ডের খোঁজ পেয়েছেন যাদের করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক হিসেবে কাজে লাগানো যেতে পারে। প্রতিটি উপাদানেই রয়েছে অ্যান্টি-ভাইরাল গুণ যা ভাইরাসের বিভাজন ক্ষমতাকে থামিয়ে দিতে পারে। যেটা দিয়ে ওষুধ তৈরি হলে ভাইরাসের কোষে প্রবেশের রাস্তাও আটকানো  সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন, প্রফেসর হওয়ার স্বপ্ন চোখে ফুল বিক্রেতার মেয়ের, কৃতী ছাত্রীর দায়িত্ব নিলেন রানাঘাটের সাংসদ

ডক্টর আনন্দশঙ্কর বলেছেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্সকে কাজে লাগিয়ে এমন ড্রাগ ক্যান্ডিডেটের খোঁজ পাওয়া গেছে। কোটি কোটি কম্পাউন্ডের মধ্যে থেকে কার্যকরী উপাদান স্ক্রিনিং করা বা খুঁজে বের করার জন্য যে পদ্ধতির প্রয়োগ করেন বিজ্ঞানীরা তাকে বলা হয় 'ড্রাগ ডিসকোভারি পাইপলাইন'। তিনি আরও বলছেন, প্রায় ২০ কোটি উপাদানের খোঁজ মিলেছে যাদের অ্যান্টি-ভাইরাল গুণ আছে। এদের মধ্যে এক কোটি ড্রাগ ক্যান্ডিডেটকে স্ক্রিনিং করে বের করা হয়েছে। এর মধ্যে থেকেও স্ক্রিনিং করে ১০০টি ক্যান্ডিডেটকে বেছে নেওয়া হয়েছে যারা আরএনএ ভাইরাল স্ট্রেন নষ্ট করতে পারবে।