ক্রমশ ভয়াবহ হচ্ছে করোনা পরিস্থিতি। করোনা টিকার জন্য মুখিয়ে আছে গোটা বিশ্ব। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিষেধক ছাড়া ভাইরাসের সংক্রমণকে রোখা প্রায় অসম্ভব। তাই গতি বাড়িয়ে এই বছরের মধ্যেই করোনা টিকা বাজারে ছাড়ার চেষ্টায় রয়েছে বিশ্বের একাধিক টিকা নির্মাণকারী সংস্থা। এদের মধ্যে ব্রিটেনের অ্যাস্ট্রাজেনিকা, ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট এবং মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থা মোদের্না-এর নাম উল্লেখযোগ্য।  এদের মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনিকা এবং সেরাম ইনস্টিটিউট যৌথ ভাবে অক্সফোর্ড এর বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনা টিকার উৎপাদন ও শেষ পর্বের ট্রায়াল নিয়ে ব্যস্ত। মার্কিন সংস্থা মোদের্না-ও এবার তাদের টিকার শেষ পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু করতে চলেছে।

আরও পড়ুন- করোনা ঘাতক কার্যকরী মলম আবিষ্কার বিজ্ঞানীদের, কেনা যাবে প্রেসক্রিপশন ছাড়াই

শুক্রবার সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যেই ১৩ হাজারেরও বেশি স্বেচ্ছাসেবকের নাম নথিভুক্ত হয়েছে এই ট্রায়ালের জন্য। উল্লেখ্য, মোট ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবকের উপর এই টিকার শেষ পর্যায়ের ট্রায়াল হবে। অর্থাৎ, ট্রায়ালের জন্য প্রয়োজনীয় মোট স্বেচ্ছাসেবকের প্রায় ৪০ শতাংশ নাম ইতিমধ্যেই নথিভুক্ত হয়ে গিয়েছে। জানা গিয়েছে, আগামী সেপ্টেম্বর-এর মধ্যেই এই ট্রায়ালের কাজ শেষ করতে চায় সংস্থা। 

আরও পড়ুন- রক্তাল্পতার সমস্যায় ভুগছেন, এই অব্যর্থ আয়ুর্বেদিক প্রতিকারগুলি হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করবে

মোদের্না-এর বিজ্ঞানীদের দাবি, করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের শরীরে যে অ্যান্টিবডি তৈরি হয় তার থেকেও বহুগুণ শক্তিশালী অ্যান্টিবটি তৈরি করতে সক্ষম এই করোনার টিকা। বিজ্ঞানীরা জানান, এই টিকা ভইরাস কণাকে ধ্বংস না করলেও শরীরে এর বিরুদ্ধে শক্তিশালী প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে কার্যকরী ভূমিকা নিয়েছে।