বিশ্ব করোনা মহামারী নিয়ে লড়ছে। এর মধ্যেই দেশে লকডাউন শিথিল হওয়ার কারণে বেশ কয়েকটি অফিস খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কয়েক দিন আগে থেকেই। এমন পরিস্থিতিতে আপনাকে যদি অফিসে যেতে হয়, তবে আপনাকে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এর কারণ লকডাউন শিথিল হওয়ার ফলেই দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে অফিসে যাওয়া আপনার করোনায় আক্রান্ত হওয়া ঝুঁকি থেকে যায়। তাই অফিসে যাওয়ার সময় আপনার এই বিষয়গুলি মাথায় রাখা উচিত যা আপনাকে নিরাপদে থাকতে সাহায্য করবে-

১. সংস্থার উচিত অফিসে ঢোকার আগে প্রতিটি কর্মচারীদের তাপমাত্রা স্ক্যানিং এবং স্যানিটাইজিং করার সুবিধা প্রদান করা। এর পাশাপাশি, আপনাকে আপনার সহকর্মীদের থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এর পাশাপাশি মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

২. অফিসে যাওয়ার সময় হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সোপ পেপার এবং জল সঙ্গে রাখুন। দুপুরের খাবার, জলের বোতল এবং প্রয়োজনীয় ওষুধ সঙ্গে রাখুন নিন। বাইরের খাবার না খাওয়াই ভালো।

৩. আপনার প্রয়োজনীয় জিনিস যেমন ইয়ারফোন, চার্জার, পাওয়ার ব্যাংক এবং ল্যাপটপ চার্জারগুলি আপনার সঙ্গে রাখুন। এই সময় অপরের জিনিস ব্যবহার না করাই ভালো।

৪. আপনি যদি অফিসে চা এবং কফি পান করেন তবে আপনার বাড়ি থেকে টি ব্যাগ ইত্যাদি নিয়ে যান। অফিসের প্যান্ট্রি আইটেমগুলি ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন।

৫. আপনার গাড়ী বা স্কুটারের সেই অংশগুলি পরিষ্কার রাখুন বা প্রতিবার ব্যবহারের আগে স্যানিটাইজ করে নিন। 

অফিসে কাজ করার সময় যা করবেন-

 অফিসে কাজ করার সময় কখনই আপনার মাস্কটি খুলবেন না, বা মাস্কটিকে স্পর্শ করবেন না।
 ডেস্কে ল্যাপটপ এবং মোবাইল রাখার আগে ডেস্কটি সঠিকভাবে পরিষ্কার করুন।
অফিসে আপনার সহকর্মীদের থেকে ৬ ফুট দূরত্বে বসুন।
অফিসে বা অন্য কোথাও লিফটটি ব্যবহারের আগে গ্লাভস ব্যবহার করুন। হাত দিলে সঙ্গে সঙ্গে স্যানিটাইজ করে নিন। 
লিফট তিনজনের বেশি লোক থাকলে এটি ব্যবহার করবেন না।

অফিস থেকে বাড়ি ফেরার পরের সাবধানতা-

ঘরে পৌঁছে, আপনার সমস্ত কাপড় ডিটারজেন্টে ভিজিয়ে রাখুন।
স্নানের আগে পরিবারের কাউকেই স্পর্শ করবেন না এমনকি পোষ্য থাকলে তাকেও স্নানের পরেই স্পর্শ করুন।
স্নানের পরে উষ্ণ জলে গার্গল করতে নিন।
পরের দিন বেড়নোর জন্য নতুন মাস্ক ব্যবহার করুন।
বাড়িতে আসার পরে আপনার লাঞ্চ ব্যাগ, মোবাইল ফোন এবং ল্যাপটপ ইত্যাদি স্যানিটাইজ করে নিন
সতর্কতা অবলম্বন করুন এবং সুস্থ থাকুন।