Asianet News BanglaAsianet News Bangla

হার্ট অ্যাটাকের পরে করা হয় কপিল দেব-এর করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি, জেনে নিন এটি কি এবং কিভাবে করা হয়

  • শুক্রবার সকালে হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল কপিল দেবের
  • ফোর্টিস এসকর্টস হার্ট ইনস্টিটিউট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাঁকে
  • সেখানে তাঁকে জরুরী করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয়েছিল
  • জেনে নিন এই করোনারিঅ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি কী এবং কীভাবে এটি করা হয়
What is coronary angioplasty and how does it work BDD
Author
Kolkata, First Published Oct 24, 2020, 3:36 PM IST

প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার এবং ১৯৮৩ বিশ্বকাপজয়ী দলের অধিনায়ক কপিল দেবের শুক্রবার সকালে হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল। যার পরে তাঁকে নয়াদিল্লির ফোর্টিস এসকর্টস হার্ট ইনস্টিটিউট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। কপিল দেবের জরুরী করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি সেখানে করা হয়েছিল। এই প্রক্রিয়া শেষে কপিল দেবের অবস্থা স্থিতিশীল হয় এবং তাকে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। এ জাতীয় পরিস্থিতিতে আপনার মনে অবশ্যই একটি প্রশ্ন জাগতে হবে যে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি কী এবং কীভাবে এটি করা হয়। 

আরও পড়ুন- সাবধান, জিভের এই রং বলে দেবে শরীরে বাসা বেঁধেছে জটিল রোগ

করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি কী?

কোলেস্টেরল কোষ বা প্লেক নামক অন্যান্য পদার্থের কারণে একজন ব্যক্তির হার্টের ধমনীগুলি ব্লক বা সংকীর্ণ হয়। এ কারণে হৃদয়ে রক্ত ​​প্রবাহ হ্রাস পায় এবং বুকে ব্যথা বা অস্বস্তি শুরু হয়। কখনও কখনও হঠাৎ রক্ত ​​জমাট বাঁধাও শুরু হয় যা রক্তের প্রবাহ পুরোপুরি বন্ধ করে দেয় এবং এর ফলে ব্যক্তির হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেড়ে যায়। করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি ব্লক হওয়া ধমনীগুলি খুলে দেয় এবং রোগীর হার্টের পেশীতে স্বাভাবিক রক্ত ​​প্রবাহ পুনরুদ্ধার করে। সাধারণত এটি বিশ্বাস করা হয় যে হার্ট অ্যাটাকের ক্ষেত্রে এক থেকে দেড় ঘন্টা সময় অতি গুরুত্বপূর্ণ এবং যদি এই সময়সীমার মধ্যে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয় তবে রোগীর জীবন বাঁচানো যায়। অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি কোনও বড় সার্জারি নয়। এটি একটি ক্যাথেটার নামক পাতলা নল এর মাধ্যমে করা হয়।

করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি কেন করা হয়?

আরও পড়ুন- সকালে খালি পেটে কিশমিশ ভেজানো জল, নিয়ন্ত্রণে রাখবে ৬ জটিল সমস্যা

যে সকল রোগীদের হার্টের ধমনীতে কোনও ধরণের ব্লক রয়েছে, যদি রোগী বারবার বুকে ব্যথা বা অস্বস্তি অনুভব করে বা যদি হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থাকে বা রোগীদের হার্ট অ্যাটাক হয় অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয়। অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি অবরুদ্ধ বা সংকীর্ণ ধমনী তাত্ক্ষণিক খোলার জন্য দরকারী হিসাবে বিবেচিত হয়। এছাড়াও, অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টির এই প্রক্রিয়া হৃৎপিণ্ডের ক্ষতি হ্রাস করতে এবং করোনারি ধমনীতে জমা প্লাক পরিষ্কার করতে সহায়তা করে।

এই পদ্ধতিটিও উপকারী কারণ কোনও বড় হার্ট অস্ত্রপচার ছাড়াই ধমনীটিকে তার স্বাভাবিক আকারে ফিরিয়ে আনা যায়। অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি সবার জন্য নয় এবং আপনার কী ধরণের হৃদরোগ রয়েছে এবং আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের অবস্থার উপর নির্ভর করে চিকিত্সকরা সিদ্ধান্ত নেন যে, আপনার করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি বা করোনারি বাইপাস সার্জারি করা উচিত।

What is coronary angioplasty and how does it work BDD

করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি কীভাবে করা হয়?

হার্ট অ্যাটাক হওয়া বা স্ট্রোকের ঝুঁকিতে আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে সার্জনরা বাইপাস সার্জারির মাধ্যমে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি বেছে নেন। এটি মূলত ৩ ধরণের অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি রয়েছেযেমন: ১) বেলুন অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি: এটি করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি সবচেয়ে সাধারণ ধরণের। এটি একটি ক্যাথেটার সমন্বিত অর্থাত্ একটি পাতলা এবং দীর্ঘ নলটি ডগায় বাঁধা একটি বেলুন দিয়ে। এই টিউবটি রোগীর বাহু বা উরুতে একটি ছোট ফুটো তৈরি করে হৃদয়ের অবরুদ্ধ ধমনীতে নিয়ে যাওয়া হয়। ক্যাথেটারের সঙ্গে সংযুক্ত বেলুনটি সংকীর্ণ ধমনীতে প্রবেশের পরে স্ফীত হয়। এই ফোলাটি ধমনীতে উপস্থিত প্লাকটিকে ফ্ল্যাট করে বা ধমনীর দেয়ালের প্রান্তে ফলকটি আটকে দেয় যার ফলে ধমনীটি আবার প্রশস্ত হয় এবং রক্তের প্রবাহ আগের মতো স্বাভাবিক হয়।

২) লেজার অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি:করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টির এই পদ্ধতিতে ক্যাথেটারও ব্যবহৃত হয় তবে বেলুনের পরিবর্তে ক্যাথেটারের ডগায় একটি লেজার থাকে। লেজারটি বাষ্প দ্বারা ধমনীতে জমা হওয়া বাধাটি সরিয়ে দেয়। বেলুন এবং লেজার অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি একের পর এক ব্যবহৃত হয়। বেলুনটি হার্ড ব্লকটি সরিয়ে দেয় এবং লেজারটি অবশিষ্ট ব্লকটি সরিয়ে দেয়।

৩) অ্যাথেরেক্টোমি: বেলুন এবং লেজার ব্যবহার করার পরেও যদি কঠোর ফলক অপসারণ করা যায় না তবে অ্যাথেরেক্টোমি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করা হয়। এতে, এক ধরণের সার্জিক্যাল ব্লেড ব্যবহার করা হয় যার সাহায্যে ধমনীর দেয়াল থেকে ফলকটি কেটে ফেলা হয়। 

যদিও করোনারি অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টির প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে কেবল ১ থেকে ৩ ঘন্টা সময় নেয় তবে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টির পরে রোগীর সুস্থ হতে ১২ থেকে ১৬ দিন সময় লাগে। তা ছাড়া এই প্রক্রিয়া চলাকালীন ব্যথাও খুব কম থাকে। চিকিত্সকরা যে জায়গা থেকে ক্যাথেটারটি প্রবেশ করায় সেই জায়গাটি অ্যানাসথিসিয়া করে দেয় এবং তাই যখন ক্যাথেটারটি প্রবেশ করানো হয় তখন রোগী সামান্য চাপ অনুভব করেন।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios