একুশের নির্বাচনে বাংলা দখল করতে মরিয়া বিজেপি। দীপাবলি শেষ হতেই বাংলায় ঘাঁটি গেড়েছেন দিল্লিত তাবড় নেতারা।  গেরুয়া শিবিরের নির্বাচনী প্রস্তুতিতে রণকৌশল ঠিক করতে ইতিমধ্যেই রাজ্য়ে এসেছেন সুনীল দেওধর, বিনোদ তাওড়ে, হরিশ দ্বিবেদী, দুষ্মন্ত গৌতম এবং বিনোদ সোনকর। গঙ্গাপাড়ে নবান্ন দখল করতে এই পাঁচ নেতাকে বাংলায় এনেছে বিজেপি। 

আরও পড়ৃুন-'মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন তৃণমূলের কিছু লোক', দলের বিরুদ্ধেই ক্ষোভ প্রকাশ বিধায়কের

বাংলাকে ৫ জোনে ভাগ বিজেপির

নবান্ন দখলের লক্ষ্যে বাংলাকে পাঁচটি জোনে ভাগ করেছে বিজেপি। এক একটি জোনের দায়িত্ব থাকবেন বিজেপির এই কেন্দ্রীয় নেতারা। অতীতে বিজেপির ওই নেতা বিজেপির ঝুলিতে সাফল্য এনে দিয়েছে। তাঁরা প্রত্যেকেই মোদি-অমিত শাহের আস্থাভাজন। বাংলায় পৌঁছেই ভাগ করা পাঁচটি জোনে জেলাস্তর থেকে দলীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শুরু করেছেন বিজেপি নেতারা। প্রতিটি জেলার জেলা সভাপতি  থেকে শুরু করে তৃণমূল স্তরের নেতাদের সঙ্গে আলাদা আলাদা বৈঠক করেন সুনীল দেওধর এবং কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

আরও পড়ুন-'বাংলায় প্রধানমন্ত্রী এলেই বহিরাগত-রোহিঙ্গারা তাহলে কী', সুখেন্দুকে পাল্টা আক্রমণ দিলীপের

উলুবেড়িয়ায় বিজেপির উচ্চপর্যায়ের বৈঠক

বুধবার উলুবেড়িয়ার বীরশিবপুরে একটি রিসর্টে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করে বিজেপি নেতৃত্ব। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বাংলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতা সহ বিজেপির জেলাস্তরের নেতারাও। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সুনীল দেওধর, কৈলাস বিজয়বর্গীয়, জোর্তিময় সিং মাহাতো, কুনাল হেমব্রম সহ অন্য়ান্য নেতারা। এদিন মেদিনীপুর জোনের বৈঠক হয়। বৈঠকে যোগদান করেন ঝাড়গ্রাম ও দুই মেদিনীপুরের জেলা সভাপতি এবং সাংগঠনিক নেতারা। 

বিজেপির উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে কী আলোচনা?

সূত্রের খবর, একুশে বাংলা দখল নিতে জেলাস্তরের নেতাদের সঙ্গে সাংগঠনিক স্তরে কাজের গতি বাড়াতে বৈঠক করেন কৈলাস বিজয়বর্গীয় ও সুনীল দেওধর। বুথ স্তর থেকে জেলা স্তর পর্যন্ত সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধিকে কি কি প্রয়োজন। কীভাবে সংগঠনকে আরও মজবুত করা যায় সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে জেলার নেতাদের সঙ্গে। সেই বৈঠকের রিপোর্ট দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্তরে পাঠাবেন বাংলার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। বিজেপির দাবি, একুশের নির্বাচনে বাংলায় দুশোরও বেশি আসনে জয়লাভ করবে গেরুয়া শিবির। 

একুশের নবান্ন দখলের লড়াইয়ে এ রাজ্যে জোর তৎপরতা শুরু হয়েছে গেরুয়া শিবিরে। বাংলায় তৃণমূল হিংসার রাজনীতি করছে বলে অভিযোগ করেন কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। তৃণমূলের সরকার দুর্নীতিতে ভরে গিয়েছে। মানুষ এর জবাব দেব। পাশাপাশি, সোনার বাংলা গড়ার কথা বলেন কৈলাস। এ রাজ্যের বেশ কিছু পুলিশ অফিসার দুর্নীতিতে যুক্ত। সিবিআই স্ক্যানারে রয়েছেন সেই সব অফিসার। দুর্নীতিতে অভিযুক্তদের সিবিআই গ্রেফতার করতে পারে বলে জানান কৈলাস।