চাহিদা তুঙ্গে, কিন্তু পর্যাপ্ত যোগান নেই। দোলের আগে বাজার ছেয়ে দিয়েছে নকল ভেষজ আবিরে। সেই আবির কিনে প্রতারিত হচ্ছেন ক্রেতারা। 

আরও পড়ুন: জোর করে রং দিলে ঢুকতে হবে শ্রীঘরে, আগাম বার্তা লালবাজারের

বসন্ত জাগ্রত দ্বারে.... আর ক'দিনের পরেই দোল। রঙের উৎসবে কি আবীর না হলে চলে! অনেকেই হন্যে হয়ে খুঁজছেন ভেষজ আবির। কারণ, সাধারণ বাজার চলতি আবিরে রাসায়নিক পদার্থ মেশানো থাকে। সেই আবির মাখলে ত্বকের ক্ষতির আশঙ্কা ষোলোআনা। আর সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে 'লোক ঠকানো'র কারবার ফেঁদে বসেছেন একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী। কেউ সাধারণ আবিরের সঙ্গে ভেষজ আবির মিশিয়ে বিক্রি করছেন, তো কেউ আবার ট্য়ালকম পাউডার কিংবা সুগন্ধী মেশানো আবিরকেই 'ভেষজ আবির' বলে চালিয়ে দিচ্ছেন। এই নকল ভেষজ আবির বিকোচ্ছেও দেদার। আবির কিনতে গিয়ে ঠকে যাচ্ছেন অনেকেই।

আরও পড়ুন: কীভাবে মাতবেন দোল উৎসবে, রইল সেলিব্রেশনের সেরা দশ উপায়

কিন্তু নকল ভেষজ আবির চেনা যাবে কী করে? ফুল নিষ্কাশন করে যে আবির তৈরি করা হয়, সেই আবিরের রঙ ততটা উজ্জ্বল বা গাঢ হয় না। কিন্তু, ভেষজ আবির যদি নকল হয়, সেক্ষেত্রে আবিরের রঙ অত্যন্ত উজ্জ্বল ও গাঢ় হবে।  রঙ দেখেই সহজেই আসল ভেষজ আবির চেনা সম্ভব বলে জানা গিয়েছে।  প্রতিবারের মতো এবারও দোলের আগে ভেষজ আবির তৈরিতে ব্যস্ত উলুবেড়িয়ার একদল প্রতিবন্ধী কিশোর-কিশোরী। তাদের হাতেই পলাশ, গোলাপ, গাঁদা ও অপরাজিতা ফুল থেকে তৈরি হচ্ছে সুগন্ধি ভেষজ আবির। সেই আবির প্যাকেটজাত হয়ে পৌঁছে যাচ্ছে বাজারে।