সন্দীপ মজুমদার, হাওড়া: নিজের ছেলে-মেয়েরাই যাঁদের খোঁজখবর রাখেননি, বৃদ্ধাশ্রমে গিয়ে তাঁদের জন্য একমাসের খাদ্যসামগ্রী দিয়ে এলেন। লকডাউনের বাজারে এভাবেই মেয়ের জন্মদিন পালন করলেন স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মী শান্তনু বেরা।

আরও পড়ুন: ঘুর্ণিঝড় আমফানের দাপটে ত্রস্ত গ্রাম, প্রকৃতিকে তুষ্ট রাখতে গঙ্গাপুজো মহিলাদের

হাওড়ার বাগনানের এনডি ব্লকের বাসিন্দা শান্তনু। চাকরি করেন খোদ জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের দপ্তরে। একমাত্র মেয়ে এবার পাঁচ বছরে পা দিল। ইচ্ছা ছিল, আত্মীয়-পরিজন, বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে নিয়ে তার জন্মদিন ঘটা করে পালন করবেন। কিন্তু বাদ সাধল করোনা আতঙ্ক। লকডাউনের কারণে কী তাহলে আর পাঁচটা সাধারণ দিনের মতো কেটে যাবে মেয়ের জন্মদিনটাও? রীতিমতো চিন্তা পড়ে গিয়েছিলেন শান্তনু। কিন্তু তেমনটা আর হল না। বরং মেয়ের জন্মদিনের বাবা যা করলেন, তা উৎসবের থেকে কোনও অংশে কম নয়।

আরও পড়ুন: শীঘ্রই খুলছে বেলুড় মঠ, দর্শনার্থীদের জন্য় কড়া নিরাপত্তা

হাওড়ার জয়পুর থানার এলাকায় একটি বৃদ্ধাশ্রম চালায় স্থানীয় একটি ক্লাব। সেখানে থাকেন ২৪ জন। সকলেই মহিলা। হাওড়া জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মী শান্তনু বেরা সিদ্ধান্ত নেন, মেয়ের জন্মদিনে ওই বৃদ্ধাশ্রমে একমাসের খাদ্যসামগ্রী তুলে দেবেন। যেমন ভাবা, তেমন কাজ। দিন কয়েক আগে এক আত্মীয়কে সঙ্গে নিয়ে তিনি নিজে বৃদ্ধাশ্রম কর্তৃপক্ষকে দিয়ে এসেছেন চাল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ, তেল-সহ নিত্য প্রয়োজনীয় র নানা সামগ্রী। দিয়েছেন নগদ টাকাও। ওই বৃদ্ধাশ্রমে এমন অনেকেই আছে, যাঁদের নিজের ছেলেমেয়েরা কোনও খোঁজখবর রাখেন না। লকডাউনের বাজারে স্বাস্থ্যকর্মীর উদ্যোগে আপ্লুত সকলেই।