সন্দীপ মজুমদার, হাওড়া-বন্যার আশঙ্কায় আগাম সতর্কমূলক ব্যবস্থা নিলেন হাওড়া সেচ দফতর। এলাকায় বন্যা পরিস্থিতি তৈরির আগেই বাঁধ সংস্কারের কাজ শুরু করা হয়েছিল। পাশাপাশি নদীবাঁধ সংস্কারের কাজ নিজে গিয়ে সরজমিনে খতিয়ে দেখলেন জেলাশাসক মুক্তা আর্য। হুগলি নদীর বাঁধ ভেঙে প্রায়ই প্লাবনের আশঙ্কা তৈরি হয় এলাকায়। শ্য়ামপুর থানার মরপুরে কিছু দিন আগে ১০৫ মিটার নদীর বসে যায়। তারপরই সেই বাঁধ সংস্কারের কাজ শুরু করে হাওড়া সেচ দফতর। 

আরও পড়ুন-সিবিআই তদন্তের দাবিকে সমর্থন, বিশ্বভারতীকাণ্ডে মুখ খুললেন অনুব্রত

কয়েক পরেই পূর্ণিমার ভরা কোটাল। হুগলি নদী উত্তাল হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তার জেরে নদীবাঁধ ভেঙে প্লাবনের সম্ভাবনা রয়েছে এলাকায়। সেকারনে আগাম সতর্কতায় উলুবেড়িয়া, শ্যামপুর এলাকার নদীবাঁধ সংস্কারের কাজ সরজমিনে খতিয়ে দেখলেন জেলাশাসক। বাঁধ সংস্কারের কাজ কেমন চলছে তা নিজে গিয়ে দেখেন তিনি।

আরও পড়ুন-আশুতোষের পর বজবজ কলেজ, সত্যিই কি বাংলায় পড়াশোনা করতে আসছেন সানি লিওনে

ডেপুটি ডিরেক্টর হাইড্রোলজি দীপঙ্কর রায় বলেন, নদী ভাঙন থেকে গ্রামবাসীদের রক্ষা করাই আমাদের মূল উদ্দেশ্য। নদীবাঁধ ভেঙে যাতে বড়সড় ক্ষতি না হয় সে বিষয়টি মাথায় রেখে দ্রুত বাঁধ মেরামতির কাজ শুরু হয়েছে। এর জন্য প্রায় ২ কোটি টাকা খরচ হবে বলে জানান তিনি।