কোনওটার নাম সালাম, কোনওটা আবার বরকত তো কোনটা রফিক। ছ'জন ভাষা শহিদের ছয়টি চারাগাছ লাগানো হল  টেঁপুর নবাসন অনন্তরাম উচ্চ বিদ্যালয়ে। অভিনব কায়দায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করল বাগনান থানার স্বজন সংস্থা।

সালটা ১৯৫২। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বাংলার ভাষার স্বীকৃতির দাবিতে আন্দোলন করতে গিয়ে শহিদ হন ছয় জন। সেই ঘটনার স্মরণেই প্রতিবছর ২১ ফ্রেরুয়ারি পালিত হয় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। শুক্রবার সকালে সারাবাংলা কবি সম্মেলন ও ক্যুইজ দিয়ে শুরু হয় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন। পরে বিকেলে ১৯৫২ সালে পূর্ব পাকিস্তানে ভাষা আন্দোলনের শহীদ সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, রফিউল সহ ছয় জনের নামে ছয়টি বৃক্ষরোপণ করা হয়। বাগনান কলেজ পরিচালন সমিতির সভাপতি মানস বসু, বিশিষ্ট সমাজসেবী অশোক ভট্টাচার্য, টেঁপুর নবাসন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অশোক মন্ডল, বিশিষ্ট শিক্ষক বিভাস সামন্ত প্রমুখেরা স্কুল প্রাঙ্গণে এক এক করে রুদ্রপলাশ, মাধবীলতা, সোঁদাল, গোলাপি কেনিয়া, ঝাড়ফানুস ও সুলতান চাঁপা গাছের চারাগুলি রোপন করেন।

আরও পড়ুন: যানজটে আটকে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা, ট্রাফিক পুলিশের ভূমিকায় খোদ তৃণমূল বিধায়ক

আরও পড়ুন: মাধ্যমিকের মাঝে মাইক বাজিয়ে মেলার উদ্বোধন, বিতর্কে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়

অনুষ্ঠানের মূল উদ্যোক্তা বাগনান-১ পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ চন্দ্রনাথ বসু জানিয়েছেন, ভাষা শহিদদের নামে গাছগুলি নামকরণ করা হয়েছে। ভাষাদিবসে অনুষ্ঠান সংবর্ধনা দেওয়া হয় এক ভ্যানচালককেও। এই অভিনব কর্মসূচিকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সকলেই।