সম্প্রতি ক্লোজ হয়ে যাওয়া সাব ইন্সপেক্টরের প্রত্যাবর্তনের সম্ভাবনার খবর পেয়েই থানায় বিক্ষোভ দেখালেন অস্বাভাবিক ভাবে মৃত্যু হওয়া এক গৃহবধূর পরিবার ও পরিজনেরা। শনিবার বাগনান থানায় এই বিক্ষোভ দেখানো হয়। উল্লেখ্য গত ২৯ ডিসেম্বর বাগনানের শীতলপুরে নিজের শ্বশুরবাড়িতে বছর ছাব্বিশের ঋতুপর্ণা রায়চৌধুরী নামে এক গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়। এই ঘটনার পরেই মৃতার পরিবারের পক্ষ থেকে মৃতার স্বামী সুমন্ত রায় ও শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ আনা হয়। এই অভিযোগের ভিত্তিতে সুমন্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর কয়েকদিন পরেই মৃতার পরিবারের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ ওঠে বাগনান থানার সাব-ইন্সপেক্টর অমিত দাসের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন, অনাথ হল ছোট্ট মেঘনা, স্ত্রীকে খুন করে গ্রেফতার তার বাবা


সূত্রের খবর,  পুরো ঘটনাটি তার পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে হাওড়া গ্রামীণ জেলা পুলিশের সদর দপ্তরে জানানো হয়। তাঁদের অভিযোগ অমিতবাবু নাকি ঋতুপর্ণার বাড়ির লোকেদের ভয় দেখিয়ে খুনের ঘটনাকে জোরপূর্বক আত্মহত্যা বলে স্বীকার করাতে চেয়েছেন। এই অভিযোগের পরেই গত ১১ জনুয়ারী সাব-ইন্সপেক্টর অমিত দাসকে ক্লোজ করা হয়। এদিকে মৃতার বাড়ির লোকেরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পারেন যে অমিতবাবু নাকি তাঁর প্রভাব খাটিয়ে পুনরায় বাগনান থানায় ফিরে আসার বিষয়টি চুড়ান্ত করে ফেলেছেন। তারপরই আশঙ্কিত হয়ে পড়েন ঋতুপর্ণার বাড়ির লোকজন ও তার প্রতিবেশীরা। সেই কারণেই শনিবার তাঁরা বাগনান থানায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করে অমিতবাবু যাতে বাগনান থানায় পুনরায় বাগনান থানায় প্রত্যাবর্তন করতে না পারেন সেই বিষয়ে সোচ্চার হন। তাঁরা থানায় একটি স্মারকলিপিও জমা দেন। 

আরও পড়ুন, রাজ্য জুড়ে আবারও শীতের আমেজ, রয়েছে শিলাবৃষ্টির সম্ভাবনা

জানা গিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের মধ্যে অন্যতম তনুশ্রী পাল জানান অমিতবাবু বাগনান থানায় ফিরে এলে ঋতুপর্ণার হত্যার ঘটনাকে প্রভাবিত করবেন বলে তাঁরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন। তিনি ফিরে এলে একই সঙ্গে বহু সাধারণ মানুষও সুবিচার থেকে বঞ্চিত হবেন বলে তাঁদের আশঙ্কা। তাই তাঁরা কোনওভাবেই অমিতবাবুর প্রত্যাবর্তন মেনে নেবেন না। এই বিষয়ে তাঁরা আইসি বাগনানের মাধ্যমে জেলা পুলিশ সুপারের কাছে একটি স্মারকলিপি পাঠিয়েছেন। প্রয়োজনে তাঁরা বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রীকেও জানাবেন বলে তিনি জানান।