বিশ্বনাথ দাস, হাওড়া-শুভেন্দুকে নিয়ে জল্পনার মাঝেই প্রকাশ্যে বোমা ফাটালেন আরও এক তৃণমূল বিধায়ক। প্রশান্ত কিশোরের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করলেন ওই বিধায়ক। পিকে-র বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ক্ষোভ প্রকাশ করে দলের অস্বস্তি বাড়ালেন পাঁচবারের বিধায়ক জটু লাহিড়ী। 

আরও পড়ুন-বিধায়ক বৈশাখীর ডালমিয়ার বিরুদ্ধে টাকা নয়ছয়ের অভিযোগ, বোমা ফাটালেন তৃণমূল নেতা

হাওড়ার শিবপুর বিধানসভা কেন্দ্রের পাঁচ বারের বিধায়ক জটু লাহিড়ী। প্রবীণ এই তৃণমূল নেতার এবার তার গলায় বেসুরো সুর। দলের কর্মকাণ্ডে তিনি অপমানিত বলে মন্তব্য করলেন তিনি। ভোট কৌশুলী প্রশান্ত কিশোরকে ভাড়াটে বলে সরাসরি আক্রমণ করেন জটু লাহিড়ী। পি কে আসার পরই দলের ক্ষতি শুরু হয়েছে বলে মনে করেন প্রবীণ এই তৃণমূল নেতা। আগামী দিনে প্রয়োজনে দল ছাড়ার পরোক্ষভাবে ইঙ্গিত দেন তিনি।

আরও পড়ুন-শুভেন্দু মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পরই তৃণমূলের পার্টি অফিস 'দখল', বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তপ্ত খেজুরি

তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রীকে মমতার বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখে দলে এসেছিলাম। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উচিত নিজের হাতে দলকে পরিচালনা করা।শুভেন্দু প্রসঙ্গে তার বক্তব্য, শুভেন্দু পারল মন্ত্রিত্ব পদের মোহ ছেড়ে বেরিয়ে আসতে। কতটা সমস্যা রয়েছে দল। মেয়র পদের দাবিদার থাকলেও ২০১৩ সালে দলের কিছু নেতার জন্য তা সম্ভব হয়নি।সেই আক্ষেপ আজ স্পষ্ট তার গলায়।দু বছর ধরে ভোট হয়নি হাওড়া পুরনিগমে। মানুষ পরিষেবা পাচ্ছে না। উচিত ছিল ভোট করানো। নির্বাচনের কয়েকমাস আগে হাওড়া সদরে সাংগঠনিক রদবদল ঠিক হয়নি বলে মনে করেন জটু লাহিড়ী।

উল্লেখ্য, কয়েক মাস আগে সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে অরূপ রায়কে। নতুন সভাপতি করা হয় লক্ষ্মীরতন শুক্লাকে। জটু বাবু আরো জানান,পি কে লোকজন তার কাছে বিভিন্ন কর্মসূচি করার জন্য নির্দেশ দেয় যখন তখন।এটা তিনি মানতে বাধ্য নন। পি কে লোকেরা প্রচুর মাইনে পায় এত টাকা কোথা থেকে আসছে। প্রশ্ন তোলেন জটু লাহিড়ী।