সমাজ ব্যবস্থায় যে ঘুন ধরেছে তা সাম্প্রতিক সময়ে মহিলা ও শিশুদের উপর একের পর এক ঘটে চলা অত্যাচারের ঘটনা প্রমাণ দিচ্ছে। এবার ছত্তিশগড়ে ঘটা নারকীয় ঘটনা সবাইকে আতঙ্কিত করে তুলল। এক ৫ বছরের শিশুকন্যাকে ধর্ষণের পর খুন করা হল। আর এই ঘটনায় নাম জড়িয়েছে শিশুটির নিজের খুড়তুতো দাদার। যে নিজেও কিনা নাবালক বলে জানা যাচ্ছে।

এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে ছত্তিশগড়ে যশপুর জেলায়। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে গত ২৪ জুলাই শিশুটি তাদের গ্রাম সংলগ্ন বনে নিজের তুতোদাদার সঙ্গে খেলতে গিয়েছিল। কিন্তু দীর্ঘ সময় পরেও শিশুটি ফিরে না আসার তার পরিজনের খোঁজাখুজি শুরু করে। শেষপযন্ত বাগিচা পুলিশ স্টেশনে শিশুটি সম্পর্কে নিখোঁজ অভিযোগ জানানো হয়। 

আরও পড়ুন: শ্বাসরুদ্ধ হয়ে পরপর ৪০টি গরুর মৃত্যু, আতঙ্ক ছড়ালো ছত্তিশগড়ের বিলাসপুরে

ইতিমধ্যে অভিযুক্ত নাবালকেক গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে নিজের দোষের কথা স্বীকারও করেছে। পুলিশের কাছে ওই নাবালক জানিয়েছে ৫ বছরের শিশুটিকে ধর্ষণের পর মাথায় পাথর থেঁতলে হত্যা করে সে। এর পর শিশুটির দেহ জলপ্রপাতের মধ্যে ছুড়ে ফেলে বাড়ি ফিরে আসে অভিযুক্ত। ইতিমধ্যে শিশুটির দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন: কার্গিল যুদ্ধ জয়ের ২১ বছর, স্মৃতির মণিকোঠা থেকে আরও একবার তাজা করে নিন বিজয় দিবসের সেই বীরগাথা

ছত্তিশগড় পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ইতিমধ্যে ওই নাবালকের বিরুদ্ধে পস্কো আইনে মামলা করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডিবিধির ৩৭৬ ধারায় ধর্ষণ ও ৩০২ ধারায় খুনের অভিযোগ আনা হয়েছে।