বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নিখোঁজ ছিল কেরলের কোল্লামের বাসিন্দা বছর ছয়ের দেবানন্দা। অবশেষে শুক্রবার সকালে খোঁজ মিছল শিশুটির। তবে জীবিত উদ্ধার করা যায়নি ছোট্ট দেবানন্দাকে। বাড়ির কাছেই ইতিকারা নদী থেকে উদ্ধার হয়েছে তার দেহ।

আরও পড়ুন: শিথিল হল ১৪৪ ধারা, সরলেন পুলিশ কমিশনার, রাজধানীতে বড় কিছু ঘটেনি বলছে শাহের মন্ত্রক

ইল্লাভোর থেকে নিখোঁজ হয়েছিল দেবানন্দা। এখানেই ছিল তার বাড়ি। ভাক্কানডুর সরস্বতী বিদ্যা নিকেতন স্কুলে প্রথম শ্রেণির ছাত্রী ছিল সে। দীর্ঘ তল্লাশই অভিযান চালানোর পর অবশেষে নদীতে খোঁজ মেলে দেবানন্দার ছোট্ট দেহটির। 

 

 

বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া দশটা নাগাদ নিখোঁজ হয়ে যায় দেবানন্দা। যার ডাক নাম ছিল পোন্নু। দেবানন্দার বাবা প্রদীপ কুমার ও মা ধন্যা মেয়েকে খুঁজে না পেয়ে শেষপর্যবন্ত পুলিশে ডায়েরি করে। এদিকে শিশুটির নিখোঁজ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই রাজ্য জুড়ে শুরু হয় তল্লাশি অভিযান। সোশ্যাল মি়ডিয়াতেও তার ছবি শেয়ার করে  চলতে থাকে দেবানন্দার খোঁজ। এমনকি একাধিক সেলিব্রিটি ব্যক্তিত্বও দেবানন্দার খোঁজে তার ছবি শেয়ার করে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

 

তবে নদীতে দেবানন্দা ভেসে যেতে পারে এমন আশঙ্কা ছিলই। সেইমত পুলিশ এবং স্থানীয় বাসিন্দারা জলে নেমে তল্লাশিও চালায়। বৃহস্পতিবার দেবানন্দার খোঁজ না মিললেও শুক্রবার সকালে তাঁর দেহটি নদীতে ভেসে উঠতে দেখে পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা। 

আরও পড়ুন: যোগী রাজ্যে সরকারি হাসপাতালে ঠাঁই হল না প্রসূতির, খোলা রাস্তায় জন্ম হল শিশুর

দেবাবনন্দার মা ধন্যা জানান, কাপর কাঁচতে বাড়ির সামনে বেরিয়েছিলেন তিনি। মেয়ে পিছু নিয়েছিল তাঁর। কিন্তু মেয়েকে ফিরে যেতে বলেছিলেন তিনি। তাঁর কথা শুনে মেয়েও বাড়িতে চলে যায় ৩ মাসের ভাইকে দেখভাল করতে। কিন্তু ফিরে এসে আর দেবানন্দাকে দেখতে পাননি তিনি। বাড়ির সদর দরজা ছিল খোলা। প্রথমে ধন্যা ভেবেছিলেন মে বোধহয় প্রতিবেশী কারও বাড়ি খেলতে গিয়েছে। কিন্তু দীর্ঘসময়ে চলে যাওয়ার পরও খোঁজাখুজি শুরু করেন তিনি। দেবানন্দার বাবা প্রদীপ কুমার কর্মসূত্র মাসকটে থাকেন।