বৃহস্পতিবার ভোররাতে অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপত্তনমে গ্যাস লিকের ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ১১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন হাজারের বেশি মানুষ। এঁদের মধ্যে অনেকেরই অবস্থা আশঙ্কাজনক। বলে মৃত্যু আরও বাড়তে পারে বলেই আশঙ্কা করছে স্থানীয় প্রশাসন। বিশাখাপত্তনমের এলজি পলিমার প্ল্যান্টে বিষাক্ত গ্যাস লিকের ঘটনায় উদ্বিগ্ন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংকে সঙ্গে নিয়ে এই বিশয়ে উচ্চপর্যায়ের বৈঠকও করেছেন তিনি। এরমধ্যেই এল নতুন করে বিপদের খবর। এবার বিষাক্ত গ্যাস লিকের ঘটনা ঘটল ছত্তিশগড়ে।

ছবিতে দেখুন: ভোপাল গ্যাস বিপর্যয়ের ৩৬ বছর পার, বিষ ধোঁয়ার মৃত্যু অভিশাপ টাটকা করে দিল বিশাখাপত্তনম

দেশে তৃতীয় পর্যায়ের লকডাউনে বেশকিছু ক্ষেত্রে ছাড় দিয়েছে সরকার। আর তাতেই রায়গড়ে খুলেছিল একটি পেপার মিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার সেই পেপার মিলেই ঘটে গ্যাস লিকের ঘটনা। যাতে অসুস্থ হয়ে পড়েন কমপক্ষে ৭ জন কর্মী। তাঁদের সকলকেই হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। এঁদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা যাচ্ছে। 

 

লকডাউনের কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল ওই পেপার মিলটি। কিন্তু কেন্দ্রের থেকে গ্রিন সিগন্যাল পেয়ে লকডাউনের তৃতীয় পর্যায়ে ফের খোলে মিলটি। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার কারণে মিলের ট্যাঙ্কটি পরিস্কার করতে নেমেছিলেন শ্রমিকরা। সেই সময় এই দুর্ভাগ্যজনক ঘটনাটি ঘটে বলে জানিয়েছেন রায়গড়ের সুপারিন্টেনডেন্ট অব পুলিশ সন্তোষ সিং। 

 

 

ছবিতে দেখুন: তিন যুগ পর ফিরল ভোপালের ভয়ঙ্কর স্মৃতি, ছবির মত সুন্দর শহর বিশাখাপত্তনমে এখন শুধুই হাহাকার

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের থেকে বিষাক্ত গ্যাস লিকের ঘটনাটি জানতে পারে পুলিশ। ইতিমধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়া শ্রমিকদের রাজধানী রায়পুরের হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।