বিহারের পর এবার বিজেপির লক্ষ্য় বাংলা। আগামী বছর পশ্চমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন। আর আগে রাজ্যে বিজেপির সংগঠনকে চাঙ্গা করতে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন শীর্ষ নেতৃত্ব। অক্টোবরেই  উত্তরবঙ্গ সফর করেছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। চলতি সপ্তাহে রাজ্যে আসছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী তথা বিজেপির থিঙ্ক ট্যাঙ্ক হিসেবে পরিচিত অমিত শাহ। বাঁকুড়া ও কলকাতায় দলীয় কর্মীদের সঙ্গে বৈঠকের পাশাপাশি স্থানীয়  বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গেও কথা বলবেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। রাজ্য বিজেপি সূত্রে তেমনই খাবর পাওয়া গেছে। 

সূত্রের খবর আগামী বৃহস্পতিবার বৃহস্পতিবার বাঁকুড়ায় যাবেন অমিত শাহ।  বাঁকুড়ার রবীন্দ্রভবনে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে আসন্ন নির্বাচনী প্রস্তুতি নিয়ে কথা বলবেন তিনি। বাঁকুড়ার বৈঠকে পুরুলিয়া হাওড়া, বীরভূমসহ বেশ কয়েকটি জেলার নেতার হাজির থাকতে পারে। পরের দিনই কলকাতার ইজেডসিসিতে কলকাতা, দুই ২৪ পরগনা মুর্শিদাবাদসহ আরও বেশ কয়েকটি জেলার নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। দলীয় কর্মীদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি রাজ্যের বিশিষ্টদের সঙ্গেও বৈঠক করবেন অমিত শাহ। সূত্রের খবর ইতিমধ্যেই রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকে বিশিষ্টদের আমন্ত্রণ জানান শুরু হয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রান্ত স্বাস্থ্য বিধি মেনেই প্রতিটি সভায় ২০০ জনের মত মানুষ উপস্থিত থাকবেন। 

পদ্ম কি তাঁকে 'সুভাষিত' করবে, ভোট লড়াইয়ে না থেকেও রয়েছেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া ...

মহামারিকে হারিয়ে দেশকে শক্তিশালী করছে বিহার, ভোট গ্রহণের মধ্যেই নির্বাচনী প্রচারে বললেন প্রধানমন্ত্র...

দীর্ঘ দিনের বিজেপির নেতা রাহুল সিনহাকে জাতীয় সম্পাদকের পদ থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। কিছুটা হলেও বর্তমানে গুরুত্ব পেয়েছেন 
মুকুল রায় ও অনুপম হাজরা। রাজ্যরাজনীতিতে খবর বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধ মেরুর নেতা হিসেবেই পরিচিত মুকুল রায় ও অনুপম হাজরা। যদিও বিষয়টি নিয়ে এখনও পর্যন্ত মুখ খোলেননি কোনও নেতাই। সূত্রের খবর রাজ্য বিজেপিতে অসন্তোষ ক্রমশই বাড়ছে। ভোটের আগে সেই অসন্তোষ দূর করতে রাজ্যের সাংগঠনিক দিকে মনোনিবেশ করতে চাইছেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। আর সেই কারণেই ঘনঘন বাংলা সফর বিজেপির নেতাদের। বিজেপির সভাপতি জেপি নাড্ডার বাংলা সফরের কথা থাকলেও তা বাতিল করা হয়েছে।