Asianet News BanglaAsianet News Bangla

অগ্নিপথ থেকে রাহুল গান্ধীকে ইডির জেরা- একগুচ্ছ প্রশ্নে অকপট লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা

১৬ তম লোকসভা পর্যন্ত স্পিকাররা সংসদীয় কাজে, কাজের পদ্ধতিতে ব্যাপক পরিবর্তন করেছেন। একইভাবে এগিয়ে নিয়ে, আমরা চেষ্টা করেছি যে ১৭ তম লোকসভায়, সংসদে আরও বেশি সংখ্যক সংসদ সদস্য থাকা উচিত, আরও বেশি অংশগ্রহণ করা উচিত। 

Agnipath Agriculture Act and Rahul Gandhi were interrogated by ED Outspoken Lok Sabha Speaker Om Birla bsm
Author
Kolkata, First Published Jun 21, 2022, 12:57 PM IST

১৭তম লোকসভার তিন বছর মেয়াদ পূর্ণ হয়েছে। শুরু হয়েছে বাদল অধিবেসনের প্রস্তুতি। আসন্ন লোকসভা অধিবেশন বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।  কারণ এই তিন বছর একাধিক বিল পাশ হয়েছে লোকসভায়। তবে তা নিয়ে অনেকক্ষেত্রেই জটিলতা তৈরি হয়েছে- আন্দোলনও রয়েছে। এই অবস্থায় একাধিক বিষয় নিয়ে রীতিমত অকপটে লোকসভার অধ্যক্ষ ওম বিড়লা কথা বলেছেন। 

প্রশ্ন- গত তিন বছরে লোকসভার কার্যক্রমে কী পরিবর্তন দেখা গেছে?

লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা- ১৬ তম লোকসভা পর্যন্ত স্পিকাররা সংসদীয় কাজে, কাজের পদ্ধতিতে ব্যাপক পরিবর্তন করেছেন। একইভাবে এগিয়ে নিয়ে, আমরা চেষ্টা করেছি যে ১৭ তম লোকসভায়, সংসদে আরও বেশি সংখ্যক সংসদ সদস্য থাকা উচিত, আরও বেশি অংশগ্রহণ করা উচিত। আমাদের কাজের মধ্যে প্রশস্ততা থাকতে হবে, আমাদের সংলাপ, আলোচনা, বিতর্কে আরও যুক্ত হতে হবে। দীর্ঘদিন বসে আমরা সংসদের মাধ্যমে দেশের স্বার্থে সর্বোচ্চ কাজ করেছি। সংসদীয় গণতন্ত্রের এই যাত্রায় বহু পরিবর্তনের সাক্ষী দেশের সংসদ। এই যাত্রায় সংসদ দেশের জনগণের কল্যাণে সব আইন প্রণয়ন করে। 

প্রশ্ন - অনেক সময় হাউসে  হট্টগোল হলে আপনাকে অসন্তুষ্ট দেখায়। এই ধরনের আচরণে আপনি কতটা অসন্তুষ্ট?

ওম বিড়লা- হাউসের ভেতরে  হট্টগোল করা, ঘণ্টা বাজিয়ে ভেতরে যাওয়া, স্লোগান দেওয়া, প্ল্যাকার্ড নেড়ে সংসদীয় রীতিনীতি তোয়াক্কা না করা ঠিক নয়। আমি  চেষ্টা করি সব দলের সম্মানিত সদস্যরা যেন সংসদীয় নিয়ম মেনে চলেন। এটা সব সদস্যের দায়িত্ব। সংসদের অভ্যন্তরে  সংসদীয় মর্যাদা বজায় রাখা জরুরি। সময়ে সময়ে প্রেসিডিং কনফারেন্সেও এ ধরনের ভাবনা-চিন্তা হয় যে কীভাবে উচ্চ মানের যোগাযোগ এবং বিতর্ক করা যায়। হাইসটি দেশের মানুষের জন্য।এটি তাদের কল্যাণের জন্য।আমি সম্মানিত সদস্যদের প্রতিনিয়ত বলে রাখি। কোন অচলাবস্থা নেই, আমি ব্যাখ্যা করতে থাকি।


প্রশ্ন - ১৭ তম লোকসভায় দেখা যাচ্ছে যে তরুণ নেতাদের ঘরে বসে কথা বলার এবং বিতর্কে অংশ নেওয়ার বেশি সুযোগ দেওয়া হচ্ছে?

ওম বিড়লা- আমি চেষ্টা করেছি যে ১৭ তম লোকসভায়, তরুণ সাংসদ বা যারা প্রথমবার নির্বাচিত হওয়ার পরে হাউসে পৌঁছেছেন, তারা যেন কথা বলার বা তাদের কথা বলার সুযোগ পান। আরও বেশি সংখ্যক সম্মানিত সদস্য হাউসে অংশ নিচ্ছেন। সারা রাত ধরে বেশ কয়েকবার হাউস চলে এবং অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিল পাশ হয়।এবার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সবচেয়ে সম্মানিত সদস্য হিসেবে নারীদের অংশগ্রহণও ছিল। নারী সদস্যরা বক্তব্য রাখেন।এটি একটি ইতিবাচক উদ্যোগ।

প্রশ্ন- অনেক বিল সংসদে বিনা আলোচনায় পাশ হয়ে যাচ্ছে, তা নিয়ে অনেক সমালোচনা হচ্ছে, কী বলবেন?

এম বিড়লা- আমি চেষ্টা করেছি যে সরকার যে বিল আনবে তা যতটা সম্ভব আলোচনা করা হোক। সরকারের আনা গুরুত্বপূর্ণ সব বিল নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে আলোচনা হয়। এতে আরও সম্মানিত সদস্যরা সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। বেশ কয়েকটি বিল স্থায়ী সভায় পাঠানো হয়। কমিটি।অনেক বিল দ্রুত পাশ করিয়ে জনস্বার্থে পাশ করান।আইনটি দেশের জনগণের জন্য প্রণীত।কিছু বিল ছিল যেগুলো নিয়ে আলোচনা হয়নি,আমি সম্মানিত সদস্যদের তা নিয়ে আলোচনা করার আহ্বান জানিয়েছি।আমিও আবেদন করব। আপনার মাধ্যমে সম্মানিত সদস্যদের সর্বোচ্চ আলোচনায় অংশগ্রহন করুন।উন্নত আইন প্রণয়নের জন্য ইতিবাচক পরামর্শ দিন।

প্রশ্ন -কৃষকদের আন্দোলনের পর কৃষি আইন বিল প্রত্যাহার করতে হয়েছিল। আপনি কি মনে করেন যে এটি লোকসভার জন্য একটি ধাক্কা কারণ এখানেই প্রথম বিলগুলি পাস হয়েছিল?

ওম বিড়লা- আইনে পরিণত হওয়ায় আলোচনার জন্য চার ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়েছিল। সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা ধরে চলে আলোচনা। সব দল আলোচনায় অংশ নেয়। অনেকেই একমত হয়েছেন আবার অনেকেই দ্বিমত পোষণ করেছেন। কেউ কেউ পরিবর্তনের কথা বলেছেন। কিন্তু সরকার যখন বিলটি প্রত্যাহার করে নেয়, তখন অনেক দলের দাবি ছিল যে আলোচনা হোক। এটি সম্মত হয়নি এবং আলোচনা করা যায়নি। সংসদীয় কমিটি বিলটি প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

প্রশ্ন- বিল পাশ করাটা কি ভুল ছিল, কারণ এটা নিয়ে মানুষের মধ্যে বিরোধিতা ছিল?

ওম বিড়লা- এদেশে গণতন্ত্র আছে। গণতন্ত্রে প্রত্যেকেরই তাদের কথা বলার অধিকার আছে। সরকার যখন কোনো পরিবর্তন বা আইন করে, তখন তার উদ্দেশ্য হল কোন শ্রেণি বা মানুষের কল্যাণ কীভাবে করা যায়। সেই সময় বিশ্বাস করা হয়েছিল যে বিলটি কৃষকদের স্বার্থে, কিন্তু কৃষকরা বিশ্বাস করেছিল যে এটি সংশোধন করা উচিত, তাই সরকার কৃষকদের কথা শুনে বিলটি প্রত্যাহার করে।

প্রশ্ন - এখন সরকার অগ্নিপথ প্রকল্প ঘোষণা করেছে। বিরোধীদের দাবি, সংসদে এ নিয়ে আলোচনা হোক, সংসদে আলোচনা হবে কি?

ওম বিড়লা- যদি কোনো সরকার একটি প্রকল্প নিয়ে আসে, তা নিয়ে আলোচনা করার দরকার নেই। কিন্তু সরকার আইন আনলে বা বিল আনলে তা নিয়ে আলোচনা হয়। কিংবা কোনো স্কিম বিলের আওতায় আনা হলে আলোচনা হবে। একটি উপদেষ্টা কমিটি সিদ্ধান্ত নেয় কোন বিষয়ে আলোচনা করা হবে। যেসব বিষয়ে এই কমিটি সম্মত হয়েছে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। ভবিষ্যতে কী সিদ্ধান্ত হবে সে বিষয়ে কিছু বলা ঠিক নয়। লোকসভার স্পিকার হিসেবে আমি কখনই এটা বলতে পারব না।

প্রশ্ন- স্বাধীনতার অমৃত উৎসব পালিত হচ্ছে। নতুন সংসদ গঠিত হচ্ছে। কবে নতুন সংসদের কার্যক্রম শুরু হতে পারে?

ওম বিড়লা- দেশের মানুষের কৌতূহল হল স্বনির্ভর ভারতের সংসদ কবে তৈরি হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন সংসদ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন, তখন সিদ্ধান্ত হয়েছিল দুই বছর লাগবে। 2022 সালে দুই বছর হতে চলেছে। কিন্তু কাজ এখন চলছে। তবে এবার সংসদের শীতকালীন অধিবেশন বসলে আমাদের চেষ্টা থাকবে এই অধিবেশনের কার্যক্রম যেন নতুন ভবনে হয়। নতুন সংসদ আমাদের দেশের ১৩০ কোটি টাকার আকাঙ্খার কেন্দ্রবিন্দু।

প্রশ্ন - কংগ্রেসের প্রতিনিধিদল আপনার সাথে দেখা করেছে এবং সাম্প্রতিক অতীতে ঘটে যাওয়া অনেক ঘটনা নিয়ে আপনার সাথে কথা বলেছে, এ বিষয়ে আপনার কী বলার আছে?

ওম বিড়লা- কংগ্রেস প্রতিনিধিদল পাওয়া গেছে। সংসদ সদস্যদের বিশেষাধিকার রয়েছে। কংগ্রেসের সদস্যরা যে অভিযোগ বা লিখিত লিখিত হোক না কেন, তারপরে নিয়ম ও প্রবিধানের অধীনে যথাযথ প্রক্রিয়া গ্রহণ করা হবে এবং বিশেষাধিকার কমিটি তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। একটি বিশেষাধিকার রয়েছে। কমিটি, যা সব দলের সদস্যদের নিয়ে গঠিত। তিনি এই বিষয়গুলো নিয়ে বসবেন এবং নিয়ম ও পদ্ধতির অধীনে তার সিদ্ধান্ত নেবেন।

প্রশ্ন- রাহুল গান্ধীকে জেরা করছে ইডি। সংস্থাটি কি এই তদন্তের জন্য লোকসভার স্পিকারকে জানিয়েছে?

ওম বিড়লা- আইন সবার জন্য সমান। যেকোনো তদন্তকারী সংস্থা যেকোনো সম্মানিত সদস্য, মন্ত্রী বা যে কাউকে ডেকে তদন্ত বা আলোচনা করতে পারে। এর জন্য কোনো স্পিকারের অনুমতি নেওয়ার প্রয়োজন নেই।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios