শনিবার ভোর ১.৩০ থেকে ২.৩০-এর মধ্যে চন্দ্রযান ২-এর ল্যান্ডার বিক্রম নামবে চাঁদের বুকে। তার আগে অবশ্য অবতরণের স্থান নির্বাচন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। ইসরোর বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০০ মিটার উচ্চতা থেকে নির্দিষ্ট ল্যান্ডিং-এর জায়গা বেছে নেবে ল্যান্ডার বিক্রম।

চাঁদের দক্ষিণ মেরু অঞ্চল এর আগে কোনও মহাকাশযানই নামেনি। কাজেই প্রায় অজানা এক জায়গায় আগে থেকে সবটাই পরিকল্পনা করে রাখা সম্ভব নয়। তাই ইসরোর বিজ্ঞানীরা দুটি পৃথক ল্যান্ডিং স্পট বেছে রেখেছেন। জানা গিয়েছে।, অবতরণের সেই মুহূর্তের তথ্য বিশ্লেষণ করে জায়াটি চুড়ান্ত করা হবে।

আরও পড়ুন - গর্বের মুহূর্তের সাক্ষী থাকতে চান, জেনে নিন কোথায় কীভাবে দেখবেন চন্দ্রযান ২-এর অবতরণ

আরও পড়ুন - আজ রাতেই '১৫ মিনিটের আতঙ্ক', ইতিহাসের দোরগোড়ায় চন্দ্রযান ২, কখন নামবে চাঁদের বুকে

আরো পড়ুন - চাঁদের মাটি ছোঁবে চন্দ্রযান, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বসে দেখবে বর্ধমানের ইউসারা

আরো পড়ুন - চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ৩৫ কিলোমিটার দূরে 'ল্যান্ডার বিক্রম', সফল হল দ্বিতীয় ডি-অরবাইটিং

ল্যান্ডার বিক্রমের অবতরণের জন্য যে জায়গাটি বাছা হয়েছে তা চাঁদের দক্ষিণ মেরু থেকে ৩৫০ কিলোমিটার দূরে। মাঞ্জিনাস ও সিম্পেলিয়াস নামে দুটি ক্রেটার বা গর্তের মধ্যবর্তী উঁচু স্থানে। এর মধ্য়েই ৫০০ মিটার x ৫০০ মিটারের দুটি বর্গাকার এলাকা বেছে রাখা হয়েছে অবতরণের জন্য। এই জায়গা দুটির মধ্যের দূরত্ব ১.৬ কিলোমিটার। গত বহস্পতিবার থেকেই এই দুটি জায়গার পরিষ্কার ছবিু তুলেছে চন্দ্রযান ২।

ল্যান্ডার বিক্রম অবতরণ শুরু করবে চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩৫ কিলোমিটার উচ্চতা থেকে। যদি প্রথম বাছাই স্থানটিতেই নামে, সেই ক্ষেত্রে ৩৫ কিলোমিটার থেকে ৬৫ সেকেন্ডে সরাসরি ১০ মিটার উচ্চতায় নেমে আসবে সে। আরদ্বিতীয় বাছাই স্থানে যদি নামে সেই ক্ষেত্রে ৪০ সেকেন্ডে নেমে আসবে ৩৫ কিমি উচ্চতা থেকে ৬০ মিটার উচ্চতায়। তারপরের ২৫ সেকেন্ডে আসবে ১০ মিটার উচ্চতায়। দুই ক্ষেত্রেই শেষের ১০ মিটার নামবে ১৩ সেকেন্ডে।