কোনও ভাবেই নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না করোনা ভারইরাসকে। চিনের মূল ভূখণ্ডে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। করোনার এপি সেন্টার উহানে এখনও আটকে রয়েছেন বহু ভারতীয়। তাদের ফিরিয়ে আনতেই ভারতীয় বায়ুসেনার সি-১৭ গ্লোবমাস্টারের উহানে যাওয়ার কথা গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা করেছিল ভারত সরকার। কিন্তু সেই বিমানকেই সবুজ সংকেত দিতে ইচ্ছে করে দেরি করছে চিন, এমনই অভিযোগ উঠছে প্রতিবেশী দেশটির বিরুদ্ধে। 

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি ভারতের তরফে ঘোষণা করা হয়েছিল উহানে আটকে থাকা বাকি ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনবে বায়ুসেনার বিশেষ বিমান। পাশাপাশি করোনাভাইরাসের সংক্রমণে প্রায় মৃত্যুপুরীতে পরিণত হওয়া উহানে মেডিক্যাল সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে। কিন্তু বিমানটিকে চিনে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি বলে একটি সূত্র থেকে দাবি করা হচ্ছে। 

আরও পড়ুন: চাপ কাটাতে জুম্বা নাচছে পুলিশ, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হল ভিডিও

তবে নিজেদের আশাকপথের সীমানা ব্যবহারের অনুমতি না দেওয়ার অভিযোগটি পুরোপুরি অস্বীকার করছে চিন। এমন কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলেই দাবি করা হয়েছে। 

এর আগে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে করে উহানে আটকে পড়া ৬৪৭ জন ভারতীয়কে দেশে ফেরানো হয়েছিল। এবার সেই উদ্যোগ নিয়েছেন ভারতীয় বায়ুসেনা। কিন্তু তাদের নাকি চিনে প্রবেশের অনুমতিই দেওয়া হয়নি।

আরও পড়ুন: যাত্রী বন্ধ করেছে কথা বলা, রাগে গায়ে আগুন ধরিয়ে দিল কন্ডাকটর

চিনের উহানে থাকা ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনতে এর আগেও এয়ার ইন্ডিয়ার দুটি বিশেষ বিমান গিয়েছিল  উহানে। তাতে করে ফিরিয়ে আনা হয়েছিল চিনে আটকে পড়া ৬৪৭ জন ভারতীয়কে। এবার সেই উদ্যোগ নিয়েছিল বায়ুসেনা। সূত্রের খবর, তাদের নাকি চিনে প্রবেশের অনুমতিই দেওয়া হয়নি। 

সি-১৭ গ্লোবমাস্টার ভারতীয় বায়ুসেনার বৃহত্তম বিমান। উহানে আটকে পড়া বাদবাকি ভারতীয়দের পাশাপাশি প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলির নাগরিকদের এই বিমানে করে ফিরিয়ে আনার কথা। 

আরও পড়ুন: ভগবান রামকে এবার টেক্কা দেবেন তাঁর ভক্ত, বিশ্বের সবচেয়ে বড় হনুমান মূর্তি তৈরি হচ্ছে এদেশেই

ফ্রান্স সহ একাধিক দেশ চিনে ত্রাণসামগ্রী ও অন্যান্য মেডিক্যাল সুযোগ-সুবিধা নিয়ে চিনে যাচ্ছে। সেখানে ভারতীয় বিমানকে ছাড়পত্র না দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলছে বিদেশমন্ত্রক। ইচ্ছেকৃত ভাবেই ভারতীয় নাগরিকদের বিপদে ফেলার চেষ্টা করছে চিন এমন অভিযোগও উঠে আসছে। 

এদিকে চিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছে গেছে ২,২৪৫-এ। আক্রান্তের সংখ্যা ৭৬,২৮৮।