সদ্য বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে জিতে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে দিল্লির মসনদে বসেছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর আসনে বসার সঙ্গে সঙ্গেই কড়া চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়েছে আম আদমি পার্টির প্রধানকে। সংশোধনী নাগরকিত্ব আইন নিয়ে জ্বলছে গোটা রাজধানী। ঘণ্টার ৯৬ ঘণ্টা পরও চাপা উত্তেজনা দিল্লি জুড়ে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে দিল্লির এই অশান্ত পরিস্থিতির জন্য মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালকেও সমানভাবে দায়ি করেছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী। এই অবস্থায় পরিস্থিতি সামলদিতে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

আরও পড়ুন: দিল্লির হিংসা নিয়ে এবার রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ কংগ্রেস, উদ্বেগ প্রকাশ রাষ্ট্রসংঘের

বৃহস্পতিবার সাংবাদিক সম্মেলনে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী জানান রাজধানীতে হিংসার ঘটনায় মৃতদের পরিবারকে ১০ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেবে আপ সরকার। গুরুতর আহতদের দেওয়া হবে ৫ লক্ষ টাকা। যাদের বাড়ি পুড়েছে তারাও পাবেন ১০ লক্ষ টাকা করে। এছাড়া বেসরকারি হাসপাতালে যাদের চিকিৎসা চলছে  'ফরিস্তে' প্রকল্পের আওতয়া তাদেরও খরচ দেবে সরকার।

 

 

এদিন দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ে আরও একবার উপমুখ্যমন্ত্রী মনীশ শিশোদিয়া সহ মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে বৈঠকে বসেন কেজরিওয়াল। সেখানেই কার্ফু কবলিত আক্রান্ত এলাকায় ত্রাণ ও খাবার পৌঁছে দেওয়ার ব্যাপারে আলোচনা হয়। 

আরও পড়ুন: এখনি এফআইআর নয় কপিল-অনুরাগদের নামে ,তিরস্কারের পরেই দিল্লি পুলিশকে সময় দিল হাইকোর্ট

কেজরিওয়াল বলেন, দিল্লি সরকারের হাতে পুলিশ থাকলে রাজধানীর পরিস্থিতি এমন হত না। তবে বুধবারের পর দিল্লির পরিস্থিতি অনেকটাই স্বাভাবিক হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। পাশাপাশি তাঁর দল আম আদমি পার্টির কেউ এই হিংসায় জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সাফ জানিয়েছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। জাতীয় নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে কোনওরকম রাজনীতি তিনি বরদাস্ত করবেন না বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।