গত অগাস্ট মাসে মহা ধূমধামে ভূমি পূজন হওয়ার পর এবার শুরু হতে চলেছে বহু প্রতিক্ষিত রাম মন্দির নির্মাণের কাজ।  মঙ্গলবার রাম মন্দির নির্মাণ কমিটির দুই দিনের বৈঠক শেষে রামজন্মভূমি তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টের কোষাধ্যক্ষ গোবিন্দদেব গিরি জানিয়েছেন, ১৫ জানুয়ারি থেকেই রাম মন্দিরের ভিত্তি স্থাপনের কাজ শুরু হয়ে যাবে। ১৫ ডিসেম্বর মন্দিরের ভিত্তিস্থাপন বিষয়ক চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা পড়বে তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টের কাছে। তার একমাস পর থেকেই শুরু করে দেওয়া হবে নির্মাণকাজ।

আরও পড়ুন - খোলা ময়দানে হবে মুখ্যমন্ত্রীর বিচার - ভারতের রাজনীতিতে 'বিপ্লব' ঘটালেন অভিমানী বিজেপি নেতা

আরও পড়ুন - 'সরকার আছে কতক্ষণ', পঞ্চায়েত ভোট থেকেই শোনা যাচ্ছে আরও এক রাজ্যে কংগ্রেসের বিদায় বাজনা

আরও পড়ুন - এটাই কি তবে কোভিড মহামারির শেষের সূচনা, কী বলছে ভারতের কোভিড পরিসংখ্যান

মন্দির নির্মাণ কমিটির দুইদিনের বৈঠকে মন্দিরের নির্মাণ প্রক্রিয়া নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন নির্মাণ কমিটির চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্র মিশ্র, রামজন্মভূমি তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টের কোষাধ্যক্ষ গোবিন্দদেব গিরি, আচার ধাম মন্দিরের স্থপতি ব্রাহাম বিহারী স্বামী এবং রাম মন্দিরের প্রধান স্থপতি সি কে সোম্পুরার ছেলে আশীষ সোম্পুরা। এছাড়া, লারসেন অ্যান্ড টুব্রো, টাটা কনসাল্টিং ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড, আইআইটি মাদ্রাসা, আইআইটি রুরকি-র বেশ কয়েকজন সিনিয়র নির্মাণ বিশেষজ্ঞও যোগ দিয়েছিলেন বৈঠকে। এই বিশেষজ্ঞরা শীঘ্রই তাদের প্রতিবেদন নির্মাণ কমিটির কাছে জমা দেবেন।

বৈঠকে অংশ নেওয়া শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টের অন্যতম সদস্য অনিল মিশ্র জানিয়েছেন, নির্মাণ কাজের প্রথম পর্যায়ে মন্দিরটির বাইরের নিরাপত্তা প্রাচীর তৈরির কাজ করা হবে। ট্রাস্টের কোষাধ্যক্ষ গোবিন্দদেব গিরি জানিয়েছেন, ৬৭ একর জমির রামজন্মভূমি প্রাঙ্গণের বাইরেও স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয়ে এলাকার উন্নয়নের কাজ করবে ট্রাস্ট। তিনি আরও বলেন,  যে রামজন্মভূমি কমপ্লেক্সকে বিশ্বের সাংস্কৃতিক রাজধানী হিসাবে গড়ে তুলবে রামজন্মভূমি তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্ট।