তাদের হাতে রয়েছে একে -৪৭, এবং আধা-স্বয়ংক্রিয় পিস্তলের মতো অত্যাধুনিক অস্ত্র। সুযোগের পেলেই মুখ্যমন্ত্রীকে খতম করে দেবে তারা। সরকারী বাসভবনে এক অদ্ভূত বেনামি চিঠি পেলেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। চিঠিতে দাবি করা হয়েছে তাঁকে হত্যা করার জন্য ষড়যন্ত্র করা হয়েছে, এবং নিয়োগ করা হয়েছে 'কন্ট্র্যাক্ট কিলার', অর্থাৎ অর্থের বিনিময়ে হত্যা করে এমন দুষ্কৃতীদের। এরপরই রাজ্যজুড়ে উচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করেছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে চিঠিটি যে পাঠিয়েছেন সে তার নাম প্রকাশ করেনি। ইংরেজি ভাষায় হাতে লেখা সেই চিঠিতে বলা হয়েছে, নবীন পট্টনায়ককে হত্যার ষড়ষন্ত্র করা হয়েছে। আর তার মূল চক্রী থাকে মহারাষ্টের নাগপুরে। এই কন্ট্র্যাক্ট কিলার-দের হালকা ভাবে নেওয়া উচিত নয়। কারণ তারা অত্যন্ত পেশাদার। যে কোনও সময়ে তারা হামলা করতে পারে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রীর উপর। এমনকী হত্যার জন্য অস্ত্রশস্ত্রও চলে এসেছে ওড়িশায়। তাই বিজু জনতা দল প্রধানকে সচেতন হতে অনুরোধ জানিয়েছে পত্রলেখক।

এই হুমকি অথবা সতর্কতার চিঠি পাওয়ার পরই, নড়ে চড়ে বসেছে রাজ্যের স্বরাষ্ট্র বিভাগ। মুখ্যমন্ত্রীর উপর এই জাতীয় কোনও সম্ভাব্য আক্রমণ রোধ করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ওড়িশা পুলিশের ডিজিপি এবং কটক ও ভুবনেশ্বরের নগরপালকে। রাজ্য স্বরাষ্ট্র বিভাগের পক্ষ থেকে  মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে, অফিসে এবং ভ্রমণের সময় সুরক্ষা ব্যবস্থার একটি পূর্ণাঙ্গ পর্যালোচনা ও মূল্যায়নও চেয়ে পাঠামনো হয়েছে পুলিশের কাছে। ওড়িশা পুলিশ সূত্র খবর, এই চিঠিকে একেবারেই হালকাভাবে নেয়নি প্রশাসন। নবীন পট্টনায়কের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে এই বিষয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত দল গঠন করা হয়েছে।