সিদ্ধিবিনায়ক মন্দির। ভারতের ধনী মন্দিরগুলির মধ্যে একটি। এখানে নিত্যদিন তিরিশ হাজার দর্শনার্থী আসে। তবে রবিবার ও মঙ্গলবার  ৬০-৭০ হাজার দর্শবনার্থীর পা পড়ে মন্দিরে। আর তাতেই চিন্তা বাড়িয়েছে মন্দির কর্তৃপক্ষের। কারণ  যেকোনও মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়তে পারে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ। ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রে বাড়ছে করোনার প্রকোপ। আজ নতুন করে আরও দুজনের দেহে মিলেছে কনোরার জীবানু। এখনও পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১৯। এই পরিস্থিতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে রীতিমত কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে মুম্বইয়ের সিদ্ধিবিনায়ক মন্দির। 

আরও পড়ুনঃ মহারাষ্ট্রে আরও ২ করোনা আক্রান্তের খোঁজ, সাহায্যে চেয়ে নেতানিয়াহুর আবেদন মোদীর কাছে

মন্দিরে আসা সমস্ত তীর্থযাত্রীদের মধ্যেই বিলি করা হচ্ছে স্যানেটাইজার। মন্দিরে ঢোকা থেকে বেরোনা ইস্তক মাঝে মাঝেই নিয়ম করে হাত পরিস্কার রাখতে আবেদন করা হচ্ছে দর্শনার্থীদের মধ্যে। আগামিকাল রবিবার। তার আগেই দর্শনার্থীদের মধ্যে স্যানেটাইজার বিলি করার কাজ শুরু হয়েগিয়েছে। শুক্রবারই মন্দিরে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মী, নিরাপত্তারক্ষীদের মধ্যে মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে প্রায় ৩০০ মাস্ক বিলি করা হয়েছে। মন্দির কর্তৃপক্ষের দেওয়া মাস্ক পরে দায়িত্ব সামলাচ্ছেন কর্তৃব্যরত মাহারাষ্ট্রের পুলিশ কর্মীরাও। সিদ্ধিবিনায়ক মন্দিরের চেয়ারম্যান আদেশ বন্দেকর জানিয়েছেন প্রায় ১৫ থেকে  ২৫ মিনিট অন্তর ধুয়ে ফেলা হচ্ছে মন্দিরের স্টিলের হাতলও। সর্বদা পরিচ্ছিন্ন রাখা হচ্ছে মন্দির চত্ত্বর। 

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাস যুদ্ধে জিতে যাচ্ছে ভারত, সুস্থ হয়ে উঠলেন আরও সাত রোগী

করোনার প্রকোপ রুখতে জারি হওয়া সমস্ত নির্দেশিকা মেনেই কাজ করা হচ্ছে। এমনই দাবি করেছে মন্দির কর্তৃপক্ষ। কিন্তু মন্দির কর্তৃপক্ষের কড়া নজরদারীতে দেব দর্শনে এসে রীতিমত নাজেহাল হতে হচ্ছে ভক্তদের। 

আরও পড়ুনঃ করোনার জেরে শহরের এসি বাস-মেট্রো কতটা নিরাপদ,কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

এদিকে ভারতেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রীতিমত চিন্তায় ফেলে দিয়েছে কেন্দ্রীয় প্রশাসনকে। এখনও পর্যন্ত এই দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৮৩। মৃত্যু হয়েছে ২ জনের। পরিস্থিতি মোকাবিলায় রীতিমত সচেতন করা হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।