চার দিকে বিলাশবহু ইমারত। তারই মাঝে ফিরে ফিরে আসছে আমরা করব জয়ের হিন্দি তর্জমা, হাম হোঙ্গে কামিয়াব।  কলকাতা নয়। এই ছবি কলকাতা থেকে দেড় হাজার কিলোমিটার দূরে গুরুগ্রামের। করোনা আতঙ্কে প্রায় লকডাউনের চেহারা নিয়ে দিল্লি সংলগ্ন এই শহর। শহরের সমস্ত শপিং মল বন্ধ। প্রায় খালি করে দেওয়া হয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি কেন্দ্রগুলি। আগেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বার হচ্ছেন না মানুষ। আট থেকে আশি ঘরবন্দি করে রেখেছেন নিজেকে। গোটা শহর জুড়েই হতাশার ছবি। 

 

গুরুগ্রামের বাসিন্দাদের মনবল বাড়াতে পথে নামলেন ২৮ নম্বর সেক্টরের মহিলারা। প্রথমে তাঁরা গায়েত্রী মন্ত্র উচ্চারণ করেন।   তারপরই গাইতে শুরু করেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান আমরা করব জয়। যা বছরের পর বছর ধরে মনোবাল যুদ্ধে যাওয়া সৈনিকদের। স্বাধীনতার যুদ্ধেও এই গান শক্তি দিয়েছিল। শতাব্দীপরেও কমেনি রবীন্দ্রনাথের গানের মাহাত্য। করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধেও রয়েছে তাঁরই গান।  রবিন্দ্রনাথকে হাতিয়ার করেই করোনা আতঙ্ক দূর করতে চান হাউসিং কমপ্লেক্সের মহিলারা। তেমনই দাবি করা হয়েছে। 

প্রথমে তিন মহিলা গান শুরু করেছিলেন। তারপর সেই গানের সুরে গলা মেলান হাউসিং কমপ্লেক্সে ঘরবন্দি হয়ে থাকা বাসিন্দারা। কেউ বারান্দা থেকে। কেউ আবার জানালা দিয়ে উঁকি মেরে গলা মেলাতে থাকেন। 

আরও পড়ুুনঃ করোনা আতঙ্কে ভীত বৃদ্ধ দম্পতির পাশে দাঁড়িয়ে জনপ্রিয়, নেটিজেনদের প্রশংসায় সহমর্মিতার গল্প

আরও পড়ুনঃ করোনার সংক্রমণ রুখতে রীতিমত গানের তালে পা মেলাল কেরল পুলিশ, দেখুন সেই ভিডিও

কিছুদিন আগে এই পথে হেঁটে ইতালির বাসিন্দারা নিজের মনববল বাড়িয়ে ছিল। তেমনই একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল সুদূর ইতালি থেকে। করোনা ভয়ঙ্কর আকার নেওয়া স্তব্ধ ইতালির জনজীবন। শুনশান রাস্তাঘাট। নিজেদের গৃহবন্দি করে রেখেছেন নাগরিকরা। এই অবস্থায় সেখানেও একটি হাউসিং কমপ্লেক্সের বাসিন্দাদে সমবেত হয়ে গান জুড়েছিলেন নিজের একাকীত্ব কাটাতে। গান গেয়েছিলেন নিজেদের মনোবল ফিরে পেতে। এবার সেই রাস্তায় হাঁটল গুরুগ্রাম। আর গুরুগ্রামের সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই মন কেড়ে নিয়েছে নেটিজেনদের।