মার্চ মাস থেকে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে আসছে ভারত। গত ২৫ মার্চ প্রথম দফার লকডাউনের সময়ে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৬২। তারপর টানা দুমাস লকডাউনের পথে হেঁটেছে গোটা দেশ।  বর্তমানে দেশে দ্বিতীয় দফার আনলকে রয়েছে। কিন্তু আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশই বাড়ছে। ১৭ জুলাই লকডাউনের ১১৪ তম দিনে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লক্ষ ছাড়িযেছে। বিশ্বের করোনাভাইরাসের ক্রমতালিকায় তৃতীয় দেশ হিসেবে রয়েছে ভারত। প্রথম ও দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিল। এই পরিস্থিতি দাঁড়িয়ে আরও আশঙ্কার কথা শোনালেন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী।

দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লক্ষ ছাড়ানোর পরই তিনি বলেন আগামীয় কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লক্ষ হয়ে যাবে। দিনক্ষণ বেঁধে দিয়ে রাহুল গান্ধী বলেছেন দ্রুতহারে যদি মানুষ সংক্রমিত হতে থাকেন তাহলে আগামী ১০ অগাস্টের মধ্যে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লক্ষ ছাড়়িয়ে যাবে।  পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অবিলম্বে কেন্দ্রীয় সরকারের উপযুক্ত পদক্ষেপ করা উচিৎ। সংক্রমণ রুখতে একাধিক পরিকল্পনা গ্রহণ করা উচিৎ বলেও মনে তিনি।শুক্রবার সকালেই হিন্দিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বার্তা দিয়েছেন কংগ্রেস সাংসদ। 

শচীন পাইলটের অবস্থান নিয়ে ধোঁয়াশা, কংগ্রেসের বিরুদ্ধে আদালতে গেলেও চিদম্বরম-সিংভিকে কী বললেন ...
রাহুল গান্ধী তাঁর বার্তার সঙ্গে বিবিসির একটি রিপোর্টও ট্যুইট করেছেন। যেখানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে অনেক দেশই ভুল পথে চলেছে। আবার অনেক দেশই মহামারী প্রতিরোধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। 

ভিন দেশের করোনা প্রতিষেধকে 'নজর' রাশিয়ার, গবেষণাগারে হানা 'কোজি বিয়ার' হ্যাকারদের ...
প্রথম থেকেই রাহুল গান্ধী করোনাভাইরাসের সংক্রমণের নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন। লকডাউনের পর থেকেই তিনি সরব হয়ে বলেছেন মহামারী রুখতে তেমন গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি কেন্দ্রীয় সরকার।  সমালোচনা করেছিলেন লকডাউন নিয়েও। দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লক্ষ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর রাহুল আবারও তোপ দাগের কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে। 

বিয়ে বাড়ির ভোজ খেয়েই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ২২, অসমের নতুন হটস্পট হিসেবে সামনে আসছে লাখিমপুর ...