কর্নাটকের পরে দিল্লি করোনা ভাইরাসের প্রকোপে দেশে মৃতের সংখ্যা দুই। দেশে এই মুহূর্তে করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা ১০৫। করোনা আতঙ্কের প্রভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে সার্বজনীন অনুষ্ঠানগুলিও। দেশের বিভিন্ন রাজ্যের সমস্ত স্কুল-কলেজ ও সিনেমাহলগুলি ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দেশে করোনা সংক্রমণ রুখতে এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে। 

আরও পড়ুন- করোনা সংক্রমণ রুখতে বিকেলে সার্ক নেতৃত্বের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স প্রধানমন্ত্রীর

করোনা সংক্রমণ রুখতে ট্রেনের এসি কামরায় বালিশ ও কম্বল দেওয়া হবে না। তা যাত্রীদের সঙ্গে করে আনতে হবে। ইতিমধ্যেই ট্রেনের সমস্ত পর্দা, কম্বল ও বালিশ সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে। এই বিষয়ে রেল মন্ত্রকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, যেহেতু এই জিনিসগুলো নিত্যদিন বহু যাত্রী ব্যবহার করছেন তাই এই জিনিসগুলির থেকে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা কয়েকগুন বেশি। তাই যাত্রী সুরক্ষার কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর পাশাপাশি ট্রেন-সহ স্টেশন চত্ত্বর পরিষ্কার রাখার উপরেও নজর দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন- করোনাভাইরাস LIVE, দুবাইগামী বিমান থেকে কোচিতে নামিয়ে দেওয়া হল যাত্রীদের

উত্তর রেলওয়ের সিপিআরও দীপক জানিয়েছেন, করোনা আতঙ্কে এই মুহূর্তে বাতিল হয়েছে বহু টিকিট। আতঙ্কের জেরে যাত্রীরা তাদের যাত্রা বাতিল করেছেন। তবে সংখ্যা এই মুহূর্তে বলা সম্ভব নয়। এছাড়া তিনি আরও বলেছেন, কোনও যাত্রীর শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়লে তাঁকে স্টেশনের আইসোলেশন ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হবে। এর পাশাপাশি যাত্রীদের উদ্দেশ্যে করোনা সচেতনার জন্য মাইকের সাহায্যে জানানো হচ্ছে। এছাড়া স্টেশন চত্তরে ডিজিটাল স্ক্রিনিং এবং পোস্টারের সাহায্যেও করোনা সংক্রমনের হাত থেকে রক্ষার বিষয়ে সুরক্ষা নেওয়ার জন্য কী কী করতে হবে এবং কী কী করা উচিৎ নয় তাও জানানো হচ্ছে।