২০২০ সালের অক্টোবরের স্মৃতি ফিরে আসছে ২০২১ এর এপ্রিলেই। মহামারি লাল চোখ আবারও পড়েছে ভারতের দিকে। ১১ অক্টোবরের পর ৬ মাস পরে এই প্রথম করোনাভাইরাসের দৈনিক সংক্রমণ ৮০ হাজারের গণ্ডি অতিক্রম করল। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১কোটি ২৩ লক্ষেরও বেশি। গত ২৪ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৮১ হাজার ৪৬৬ জন। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যাও। গত ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৪৬৯ জনের। গত অক্টোবরে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সবথেকে বেড়েছিল। নভেম্বর থেকে আক্রান্তের সংখ্যা কমচে শুরু করেছিল। কিন্তু চলতি বছর এপ্রিলেই আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজারের গন্ডি পার করায় উদ্বেগ বাড়ছে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে। মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহারের ওপর জোর দেওয়ার পাশাপাশি ভিড় এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সংক্রমণ রুখতে এপ্রিল মাস জুড়েই টিকাকর্মসূচি চালু রাখার পরিকল্পনা নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। পয়লা এপ্রিল থেকেই ৪৫ বছরের বেশি বয়স্কদের টিকা প্রদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে দেশ জুড়ে।

এক নজরে দেশের করোনা চিত্র 
দৈনিক আক্রান্ত ৮১,৪৬৬
দৈনিক মৃত্যু   ৪৬৯
দৈনিক সুস্থ     ৫০, ৩৫৬
গত ২৪ ঘণ্টায় 

দেশে মোট আক্রান্ত ১,২৩,০৩.১৩১
মোট সুস্থ ১,১৫,২৫,০৩৯
অ্যাক্টিভ কেস ৬, ১৪ ৬৯৬
মৃত্যু  ১,৬৩,৩৯৬
 

টিকাকরণ ৬, ৮৭, ৮৯ ১৩৮ 

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী করোনা আক্রান্ত রাজ্যগুলির ক্রমতালিকায় প্রথমেই নাম রয়েছে মহারাষ্ট্র। ক্রমতালিয়া অনুযায়ী পরের রাজ্যগুলি হল কেলর, কর্ণাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের রিপোর্ট অনুয়ায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্র, ছত্তিশগড়সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুতহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৮১ শতাংশেরওব বেশি। সেই রাজ্যগুলিতে কড়া সতর্কতা জারি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংক্রমণ রুখতে নমুনা পরীক্ষার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। মহারাষ্ট্র সরকার আরটি পিসিআর পরীক্ষা দাম ১ হাজার থেকে কমিয়ে ৫০০ টাকা করেছে। অন্যদিকে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার চার্জও কমানো হয়েছে। 
করোনাভাইরাসের সংক্রমণে লাগাম টানতে এদিন ইউনিয়ন ক্যাবিনেট সচিব আজই একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক ডেকেছেন। অন্যদিনে সংক্রমণ রুখতে বাড়ান হয়েছে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যাও। 

করোনা আক্রান্ত দেশগুলির ক্রম তালিকায় তৃতীয় স্থানে নেমে গেছে ভারত। প্রথম স্থানে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আক্রান্তের সংখ্যা ৩১, ২৪৪,৬৩৯। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে আক্রান্তের সংখ্যা ১২,৮৪২,৭১৭, তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। পরের দুটি দেশ হল ফ্রান্স ও রাশিয়া। ব্রিটেনের স্থান ষষ্ঠ।