দেশে চলছে দ্বিতীয় দফার লকডাউন। ৩ মে পর্যন্ত আপাতত লকডাউনের ঘোষণা করে রেখেছে ভারত সরকার। যার ফলে গোটা দেশে বন্ধ বাস, ট্রেন, বিমান পরিষেবা সহ যাবতীয় কিছু। দেশে হঠাৎ করেলকডাউন ঘোষণা হওয়ায় অনেকেই বাড়ি ফিরতে পারেননি। বিভিন্ন রাজ্যে আটকে পড়েছেন পরিযায়ী শ্রমিকের দল। তেমনি রাজস্থানের আলোয়ার থেকে কাজ করতে আসা এক দম্পতি আটকে পড়েছিলেন ত্রিপুরায়। সেখানেই জন্ম হল তাঁদের সন্তানের। লকডাউনের ভারতে জন্ম হওয়ায় নবজাতকের নাম রাখা হল 'লকডাউন'। 

দেশে করোনা মোকাবিলায় এবার 'কালো ঘোড়া' সেপসিস ড্রাগ, ভরসা রাখছে এইমস

আমেরিকায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ৮ লক্ষ, গ্রিনকার্ড দেওয়া বন্ধ করলেন ট্রাম্প

করোনা আক্রান্ত সমাজকর্মীর সংস্পর্শে ইমরান, সংক্রমণের আশঙ্কা এবার পাক প্রধানমন্ত্রীর

রোজগারের জবন্য প্লাস্টিকের খেলনা নিয়ে বিভিন্ন রাজ্যে ঘুরে বেড়ান সঞ্জয় বাউরি ও তাঁর স্ত্রী মঞ্জু বাউরি। মাস ছয়েক আগে রোজগার পাতির আশায় ত্রিপুরায় এসেছিলেন দু'জনে। কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ আটকাতে দেশে হঠাৎ করে লকডাউন শুরু হয়ে যাওয়ায় আর বাড়ি ফিরতে পারনেনি তাঁরা। সন্তানসম্ভবা মঞ্জুকে নিয়ে অসমেই আটকে পড়েন সঞ্জয়। সেখানেই রাজ্য সরকার পরিচালিত ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল হাসপাতালে গত ১৩ এপ্রিল লকডাউনের মাঝেই এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেন মঞ্জু। লকডাউনের মাঝেই জন্মেছে সন্তান, সেই কারণে সরকারি আধিকারিকদের পরামর্শে ছেলের নাম লকডাউন রাখার সিদ্ধান্ত নেন দম্পতি।

মা ও সন্তান দুজনেই ভাল আছে। লকডাউনের সময় প্রশাসনের আধিকারিকরা যেভাবে ভিনরাজ্যের দুই মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তাতে অভিভূত সঞ্জয় ও মঞ্জু। ত্রিপুরায় সন্তানের জন্ম হলেও এখন লকডাউনকে নিয়ে দ্রুত রাজস্থানেই ফিরে যেতে চান বাউরি দম্পতি। 

এদিকে সারা দেশের মত উত্তর-পূর্বের রাজ্য ত্রিপুরাতেও চলছে লকডাউন। তবে এখানকার পরিস্থিতি এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ২ জন করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। তাঁদের মধ্যে একজন ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন।