শনিবার, ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৪-তে পৌঁছেছে। তারপরই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান মন্ত্রক কোভিড-১৯ রোগকে 'নোটিফায়েড ডিসাস্টার' বা 'অবহিত বিপর্যয়' বলে ঘোষণা করল। সেই সঙ্গে মন্ত্রক করোনাভাইরাস-এ আক্রান্ত হয়ে যাদের মৃত্যু হবে তাদের পরিবারদের জন্য চার লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে বলে ঘোষণা করেছে। স্টেট ডিসাস্টার রিলিফ ফান্ড থেকে এই টাকা দেওয়া হবে।

শনিবার থেকে বেঙ্গালুরুতে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএস-এর অখিল ভারতীয় প্রতিনিধি সভা শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ-এর হুমকির কারণে সেই সবা বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আরএসএস-এর সাধারণ সম্পাদক ভাইয়াজি জোশী। এদিন বেঙ্গালুরুর দক্ষিণ শহরতলিতে খালি করে দেওয়া হয়েছে ইনফোসিস ভবন-ও। তার আগে কোভিড-১৯'এর আক্রান্ত হিসাবে সন্দেহের তালিকায় থাকা এক ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছিলেন ওই ভবনে কাজ করা সফটওয়্যার সংস্থাটির এক কর্মী।

এখনও পর্যন্ত ভারতে মোট ৮৪ জন কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত। এদিন তেলেঙ্গানা রাজ্যে আরও এক ব্যক্তির করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফলাফল ইতিবাচক এসেছে। এই নিয়ে এই রাজ্য দুজন এই রোগে আক্রান্ত হলেন। ওই এদিন যাঁর দেহে করোনার উপস্থিতি প্রমাণিত হয়েছে, তিনি দিন কয়েক আগে ইতালি থেকে ফিরেছিলেন। তাঁকে সরকারি গান্ধী হাসপাতালে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে।

ভারতে এখনও পর্যন্ত করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে মৃত্যু হয়েছে দুি জনের। কর্নাটকের কালবুর্গি এলাকায় এক ৭৬ বছরের বৃদ্ধ ভারতে প্রথন করোনার বলি হন। এরপর শুক্রবার দিল্লিতে এই সংক্রামক ব্যধীতে আরও এক ৬৮ বছর বয়সী মহিলার মৃত্যু হয়েছে।