নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর মৃত্যু রহস্যাবৃত। একর পর এক কমিশন গঠন করেও সেই রহস্যের সমাধান পাওয়া যায়নি। কিন্তু, মহাত্মা গান্ধীর মৃত্যু নিয়ে এমন কোনও রহস্য নেই। সকলেরই জানা ১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি আরএসএস-এর প্রাক্তন কর্মী ও হিন্দু মহাসেনার সদস্য নাথুরাম গডসে পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে গুলি করে হত্যা করেছিল জাতির জনক-কে। কিন্তু, সত্যিই কি গান্ধীকে খুন করা হয়েছিল, না তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন? এমনই প্রশ্ন তুলে দিল গুজরাতের একটি স্কুল।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে গুজরাতের গান্ধীনগরে সুফলম শল বিকাশ সঙ্কুল নামে একটি সরকারি মদতপ্রাপ্ত স্কুলই এই প্রশ্ন তুলেছে। সেখানে নবম শ্রেণীর ইন্টারনাল পরীক্ষার প্রশ্নে মহাত্মা গান্ধী কীভাবে আত্মহত্যা করেছিলেন তা ব্যাখ্যা করতে বলা হয়।

তবে এখানেই ওই স্কুলের বিতর্কিত প্রশ্নের ঝাঁপি বন্ধ হয়নি। দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রদের জেলা পুলিশ প্রধানকে চিঠি লিখতে বলা হয়। স্বাধীনতার পর থেকেই যে রাজ্যে মদ বিক্রি নিষিদ্ধ, সেই রাজ্যের ছাত্রদের চিঠির লিখে অভিযোগ জানাতে বলা হয়, এলাকায় মদের বিক্রি বাড়ছে, আর তার ফলে কীভাবে বেআইনিভাবে আমদানি-রপ্তানি কারকরা এলাকায় ঝামেলা বাদাচ্ছে সেই বিষয় নিয়ে।

এরপরই গুজরাতের শিক্ষা বিভাগ নড়ে চড়ে বসেছে। গান্ধীনগরের জেলা শিক্ষা আধিকারিক ভরত বাধের জানিয়েছেন, এই ধরণের প্রশ্ন অত্যন্ত আপত্তিজনক। এই বিষয়ে তাঁরা তদন্ত প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। তদন্তের রিপোর্ট জমা পড়লেই ওই স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে দাবি করেছেন তিনি। তবে এই বিষয়ে রাজ্য শিক্ষা দপ্তরের কোনও হাত নেই বলেই দাবি করেছেন তিনি।