ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের হস্টেল থেকে নিখোঁজ এক পড়ুয়া। বছর কুড়ির ওই যুবক বি-টেক তৃতীয় বর্ষের ছাত্র বলে জানা যাচ্ছে। হায়দরাবাদের নামকরা মাল্লা রেড্ডি কলেজের হস্টেল থেকে তাঁকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। 

বছর কুড়ির ওই ছাত্রের নাম জীবন রেড্ডি। মাইসাম্মাগুড্ডা এলাকার হস্টেলে তিনি থাকতেন। যা পেটাবাশ্রিবাদ পুলিশ থানার অন্তর্গত। কলেজ থেকে প্রায় ৪-৬ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই এলাকা। 

আরও পড়ুন: মুকেশ আম্বানির পরেই তালিকায় রয়েছেন ইনি, চেনেন কি ভারতের দ্বিতীয় ধনীতম ব্যক্তিকে

জীবন রেড্ডির বাবা প্রভাদর রেড্ডি জানান, মঙ্গলাবার  দুপুর থেকে তাঁর ছেলের কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। পুলিশের কাছে ছেলের নামে মিসিং ডায়েরিও করেছেন তিনি। নালগোন্ডার বাসিন্দা প্রভাদর রেড্ডি পুলিশকে জানান, মঙ্গলবার দুপুরে হস্টেল কর্তৃপক্ষ তাঁকে ছেলের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি জানায়। তবে ঘটনার পর ৭২ ঘণ্টা কেটে গেলেও এখনও জীবনের কোনও খোঁজ পায়নি পুলিশ।

এদিকে জীবন রেড্ডির নিখোঁজের খবর পেয়ে হস্টেলে তদন্ত করতে যায় পুলিশ। সূত্রের খবর, হস্টেলের শৌচালয়ে রক্ত দেখতে পেয়েছে পুলিশ। প্রাথমিক ভাবে ওই রক্ত জীবনের বলেই মনে করা হচ্ছে। 

আরও পড়ুন: কাশ্মীর ইস্যুতে ইমরানের হাত ধরলেন এরদোগান, তুরস্কের প্রেসিডেন্টকে কড়া বার্তা ভারতের

পড়ে থাকা রক্ত পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পেটাবাশ্রিবাদ থানার ইন্সপেক্টর এম মহেশ। এছাড়াও  জীবন রেড্ডিকে খুঁজে বার করতে প্রযুক্তির সাহায্যে নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে গত কয়েকদিন ধরে জীবনের মধ্যে বেশকিছু পরিবর্তন দেখা যাচ্ছিল বলে জানিয়েছে হস্টেল কর্তৃপক্ষ। সে মনমরা ছিল বলে দাবি করা হচ্ছে। 

এদিকে প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশ জানতে পেরেছে, বছর কুড়ির ওই যুবকের অলনাইন বেটিং-এর নেশা ছিল। জীবন সম্পর্কে আরও তথ্য জানতে হোস্টেলে তাঁর সহকর্মীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। জীবনের গতিবিধি জানতে  হস্টেল সংলগ্ন সিসিটিভিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 

এর আগে গতবছর ডিসেম্বরে হায়দরবাদ থেকে আরও এক  ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়া নিখোঁজ হয়ে যায়। প্রথম বর্ষের ওই ছাত্রও কলেজ সংলগ্ন হস্টেল থেকে নিখোঁজ হয়েছিল।