বুধবারে কেন্দ্র-কৃষক বৈঠকে কী জট কাটবে? সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে রাজধানীর রাজপথ। এদন কেন্দ্রীয় সরকার কৃষকদের সঙ্গে ষষ্ঠ দফায় আলোচনায় বসছে। এদিনও কৃষকরা জানিয়েছেন তাঁরা নতুন তিনটি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে অনড় রয়েছেন। একই  সঙ্গে নূন্যতম সাহায়ক মূল্য নিয়ে কেন্দ্রে স্পষ্ট বার্তা চাই। অন্যদিকে কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে আশা প্রকাশ করা হয়েছে এদিনের বৈঠকেই সমস্ত জটিলতা কেটে যেতে পারে। 

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সোম প্রকাশ, এর আগেই কৃষকদের সঙ্গে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। এদিন তিনি বলেছেন, কৃষকদের সঙ্গে আজকের বৈঠকেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আমরা চাই তাঁরা বাড়িতে তাঁদের পরিবারের সঙ্গে নববর্ষ উদযাপন করুক। সরকার খোলা মনে সমস্যা সমাধানের জন্য অপেক্ষা করে রয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। তিনি আরও করেন কেন্দ্রীয় সরকার নূন্যতম সহায়ক মূল্য সহ প্রতিটি বিষয় নিয়েই কৃষকদের সঙ্গে আলোচনার জন্য প্রস্তুর রয়েছে। 

অন্যদিকে কৃষকদের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, সরকার যদি তাঁদের তিনটি নতুন কৃষি আইন বাতিলের দাবি মেনে নেয় তাহলে সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে বৈঠকের জন্য কৃষকদের একটি প্রতিনিধি এদিন সিংহু বর্ডার থেকে বিজ্ঞান ভবনের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। যাওয়ার আগে তাঁরা স্পষ্ট করে দিয়েছেন তিনটি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতেই শুধুমাত্র আলোচনা করবেন তাঁরা। 

দিল্লির উপকণ্ঠে কৃষক আন্দোলন ৩৫দিনে পড়ল। কৃষকদের আন্দোলনের জেরে প্রায় অবরুদ্ধ দিল্লির সীমান্তবর্তী এলাকা। তিনটি কৃষি আইন বাতিলের দাবি তুলে ২৬ নভেম্বর থেকে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। প্রতিকূল আবহাওয়ার শীত উপেক্ষা করে চলছে আন্দোনল। এর আগে সমস্যা সমাধানে আরও ৫ বার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল ও কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমরের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন তাঁরা। আলোচনা করেছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গেই। কিন্তু এখনও পর্যন্ত দুই পক্ষই নিজেদের অবস্থানে অনড় থাকায় সমধান সূত্র অধরাই থেকে গেছে।স