কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদে দাঁড়িয়ে দাবি করলেন, নিজের বাড়িতেই খোশমেজাজের আছেন ফারুক আবদুল্লা। তাঁকে গৃহবন্দি করা হয়নি বলেও দাবি করলেন অমিত শাহ। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই দাবি করার কিছুক্ষণের মধ্যেই শ্রীনগরে অমিত শাহকে মিথ্যেবাদী বলে দাবি করলেন জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এবং ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ফারুক আবদুল্লা। তাঁর অভিযোগ, নিজের বাড়িতেই তাঁকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে। ফারুকের অভিযোগ, নিজের মেয়ে এবং বোনের বাড়িতেও যেতে দেওয়া হচ্ছে না তাঁকে। 

এ দিন সংসদে ফারুক আবদুল্লার অনুপস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। তার জবাবে অমিত শাহ বলেন, ফারুক আবদুল্লা কাশ্মীরে নিজের বাড়িতে মুক্তই আছেন। কটাক্ষের সুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'আমি তো ফারুক আবদুল্লার কানের নীচে বন্দুক রেখে তাঁকে সংসদে নিয়ে আসতে পারি না!'

আরও পড়ুন- ৩৭০ প্রত্যাহারে কি সমর্থন, বিতর্কে না ঢুকে কৌশলী মমতা, দেখুন ভিডিও

আরও পড়ুন- কাশ্মীর নিয়ে লোকসভায় বেফাঁস অধীর, বক্তব্য শুনে রেগে গেলেন সোনিয়াও

এর কিছুক্ষণের মধ্যেই শ্রীনগরে ফারুক আবদুল্লা কাশ্মীরে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, 'স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  মিথ্যে কথা বলছেন। আমাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে। আমার বাড়ির বাইরে একজন ডিএসপি পদমর্যাদার অফিসারকে মোতায়েন করে রাখা হয়েছে। আমার সঙ্গে কাউকে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না।'  এর পরেই কেঁদে ফেলেন সদা হাস্যময় জম্মু কাশ্মীরের তিন বারের মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, 'আমার বাবা শেখ আবদুল্লাহ ধর্মনিরপেক্ষ, গণতান্ত্রিক ভারতবর্ষকে বেছে নিয়েছিলেন। আমার কিছু বলার ভাষা নেই। আমি দুঃস্বপ্নেও ভাবতে পারিনি, ওঁরা এমন কিছু করতে পারে কাশ্মীরের মানুষের সঙ্গে। কাশ্মীরবাসীর সাংবিধানিক নিরাপত্তা কেড়ে নেওয়া হয়েছে। এই দেশের জন্য অগুণতি কাশ্মীরি প্রাণ দিয়েছেন। এর বিরুদ্ধে বিকল্প যে পথ আমাদের সামনে আসবে, সেই সব পথই খতিয়ে দেখব আমরা। এঁদের কাছে প্রত্যেক মুসলিমই এখন বিচ্ছিন্নতাবাদী।' 

আমার রাজ্যে জ্বলছে, কাশ্মীরের মানুষকে জেলে বন্দি করা হচ্ছে, বাড়ির মধ্যে ঢুকে অত্যাচার চালানো হচ্ছে। যা করা হয়েছে পুরোপুরি অগণতান্ত্রিক, স্বৈরতন্ত্র চলছে।  কাশ্মীরের মানুষের পিঠে ছুরি মারা হয়েছে। আমরা এর বিরুদ্ধে আদালতে যাব। আমরা পাথর ছুড়ি না, অশান্তি ছড়াই না। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে সমস্যা সমাধানে বিশ্বাসী। যদি আমাকে গুলি করতেই হয় তাহলে পিছন থেকে নয়, আমার বুকে গুলি করুন। আমার ছেলেকে জেলবন্দি করে রাখা হয়েছে। জানিনা আরও কত গরিব মানুষকে এঁরা জেলে ভরবে!

ফারুক আবদুল্লা দাবি করেন, কয়েক দিন আগে ছেলে ওমর আবদু্ল্লাকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে দেখা করেন তিনি। তখনও প্রধানমন্ত্রী এই বিষয়ে তাঁদের বিন্দুমাত্র কিছু আঁচ করতে দেননি বলেই দাবি করেন প্রবীণ এই নেতা। প্রসঙ্গত সোমবার ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের বিল রাজ্যসভায় পাশ হওয়ার পরেই ওমর আবদুল্লা, মেহবুবা মুফতি-সহ কাশ্মীর উপত্যকার বেশ কয়েকজন রাজনৈতিক নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে খবর।