বুধবার নয়াদিল্লি-তে বর্ষীয়ান আইনজীবী কে পরাশরন-এর বাড়িতে হয়ে গেল শ্রী রাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট অর্থাৎ রাম মন্দির নির্মাণের জন্য সরকার গঠিত ট্রাস্টের প্রথম বৈঠক। প্রথম বৈঠকেই ট্রাস্টের বিভিন্ন পদের দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়া হল সদস্যদের মধ্যে। ট্রাস্টের সভাপতি নির্বাচিত হলেন নির্মোহী আখড়ার মোহান্ত নিত্যগোপাল দাস। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক হিসাবে বেছে নেওয়া হল চম্পত রাই ও গুরু গোবিন্দদেব গিরি-কে দায়িত্ব দেওয়া হল কোষাধ্যক্ষের।

আরও পড়ুন - 'মুসলিমদের কবরের উপরই কি হবে রাম মন্দির', অযোধ্যায় উঠল গুরুতর প্রশ্ন...

অযোধ্যার জমি বিতর্ক মামলায় সুপ্রিম কোর্টে হিন্দু পক্ষের হয়ে লড়া আইনজীবীদের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ৯৭ বছরের আইনজীবী কে পরাশরন। রামমন্দির ট্রাস্টের ঠিকানা হিসাবে কেন্দ্রীয় সরকার তাঁর নয়াদিল্লির বাড়ির ঠিকানাটিই দিয়েছিল। এদিন সেখানেই বসল এই ট্রাস্টের প্রথম বৈঠক।

অযোধ্যা মামলায় অন্যতম পক্ষ ছিল নির্মোহী আখড়া। শুনানি চলাকালীন নিয়মিত আদালতে উপস্থিত থাকতেন প্রদান মোহান্ত নিত্যগোপাল দাস। শেষ পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্ট নির্মোহী আখড়ার আবেদন না মানলেও, রাম মন্দির ট্রাস্টে তাদের একজন প্রতিনিধি রাখার নির্দেশ দিয়েছিল। সেই মতোই নিত্যগোপাল দাস-কে ট্রাস্টের সদস্য করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। এদিন, তাঁকেই এই ট্রাস্টের সভাপতি বেছে নিলেন বাকি সদস্যরা।

আরও পড়ুন - কেমন হবে 'শ্রী রাম জন্মভূমী তীর্থ ক্ষেত্র' ট্রাস্টের চেহারা, বিশদে জানালেন অমিত

আরও পড়ুন - ঈশ্বরের উকিল থেকে দলিত রাম ভক্ত, চিনে নিন রাম জন্মভূমী ট্রাস্টের ১৫ সদস্যকে

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের আন্তর্জাতিক সাধারণ সম্পাদক তথা সংগঠনের সহ-সবাপতি চম্পত রাই-কে ট্রাস্টের বাকি সদস্যরা পদাধিকার বলে ট্রাস্টের সদস্য হিসাবে মনোনীত করেন। তাঁকেই রাম মন্দির ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। আর ট্রাস্টের অন্যতম স্থায়ী সদস্য উদুপি মঠের স্বামী গোবিন্দদেব গিরি-কে নির্বাচিত করা হয়েছে ট্রাস্টের কোষাধ্যক্ষ হিসাবে।