রাজ্যসভার সদস্য হিসেবে মেয়াদ শেষ হয়েছে বর্ষীয়ান আইনজীবী কেটিএস তুলসির। তার জায়গায় এবার সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈকে মনোনীত করলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জারি করা নোটিসে এমনটাই জানানো হয়েছে। 

রাজ্যসভার মনোনীত সদস্য প্রবীণ আইনজীবী কেটিএস তুলসির অবসরের পরে কাউন্সিল অব স্টেটস-এর একটি পদ ফাঁকা হয়ে যায়। সংবিধানের ৮০ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, সাহিত্য, বিজ্ঞান, কলা এবং সামাজিক বিষয়ে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন এমন কোনও ব্যক্তিকে সেই পদে মনোনীত করার কথা বলা হয়েছে। সংবিধানের সেই অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, সোমবার বিচারপতি রঞ্জন গগৈকে ওই পদে মনোনীত করেন রাষ্ট্রপতি।

আরও পড়ুন: চিনে জমা পড়ছে গুচ্ছ গুচ্ছ বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন, কাঠগড়ায় সেই করোনা ভাইরাস

১৩ মাস সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব সামলেছিলেন রঞ্জন গগৈ। গতবছর নভেম্বর মাসে অবসর নেন তিনি। তার আগে ঐতিহাসিক অযোধ্যা মামলার রায় দানকারী সাংবিধানিক বেঞ্চের প্রধান হিসাবে  দায়িত্ব পালন করেছেন গগৈ। ২০১২ সালের ২৩ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে উন্নিত হন গগৈ। ২০১৮ সালের ৩ অক্টোবর দেশের ৪৬তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্হ নেন। রাফাল জেট নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে ক্লিনচিট দেয় তাঁর নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চই। পাশাপাশি গগৈয়ের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগও উঠেছিল। 

এদিকে প্রাক্তন প্রধান বিচারপতির রঞ্জন গগৈয়ের মনোনয়ন ঘিরে ইতিমধ্যে রাজনৈতিক মহলে বিতর্ক দেখা দিয়েছে। গগৈকে রাজ্যসভায় মনোনীত করার সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। ট্যুইটারে এনিয়ে পোস্টও করেছেন মহুয়া।

আরও পড়ুন: দু'জনে সংসার করেছেন ৬০ বছর, করোনা আক্রান্ত হয়ে একসঙ্গেই মৃত্যু দম্পতির

তবে বিচারব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত কয়েকজন ব্যক্তিত্ব এর আগেও রাজ্যসভার সদস্য হয়েছেন। প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি রঙ্গনাথ মিশ্র কংগ্রেসে যোগ দিয়ে রাজ্যসভার সাংসদ হয়েছিলেন।