গত কয়েকদিন ধরেই উপত্যকা জুড়ে লাগাতার জঙ্গি দমনে অভিযনা চালিয়ে যাচ্ছে ভারতীয় সেনা। সেই সফল্যের ধারা বজায় থাকল শনিবারও। সপ্তাহন্তে পৃথ ২টি এনকাউন্টারে ৪ জঙ্গিকে খতম করল ভারতীয় সেনা। কুলগাম ও অনন্তনাগে এই দুটি অভিযান চালান হয় জম্মু-কাশ্মীরের পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর জওয়ানরা।

কাশ্মীর পুলিশ সূত্রে জানা গাছে, কুলগামের নিপোরা এলাকায় শনিবার ভোর রাত থেকে অপারেশন শুরু করে বাহিনী। দীর্ঘক্ষণ দুই তরফের লড়াইয়ের পর ২ জঙ্গিকে নিকেশ করে সেনা। ওই এলাকায় আরও জঙ্গি লুকিয়ে থাকার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়নি বাহিনী। তাই গোটা অঞ্চলেই চিরুনি তল্লাশি চালান হচ্ছে।

আরও পড়ুন: ৯৭ বছরের বৃদ্ধের কাছে এবার পরাস্ত করোনা, ১৮ দিন ভেন্টিলেশনে থেকে বাড়ি ফিরল ৪ মাসের খুদেও

ভারতীয় সেনার কাছে গোপন সূত্রে খবর এসেছিল দক্ষিণ কাশ্মীরের নিপোরা এলাকায় লুকিয়ে রয়েছে বেশ কয়েকজন সন্ত্রাসবাদী। খবর পেয়ে এলাকায় তল্লাশির প্রস্তুতি নেয় জম্মু ও কাশ্মীরের পুলিশ, ভারতীয় সেনা ও সিআরপিএফের জওয়ানরা। শনিবার ভোরে এলাকায় তল্লাশি শুরু করে যৌথ বাহিনী। এদিকে তল্লাশি চলাকালীন আচমকাই জওয়ানদের উপর হামলা চালায় জঙ্গিরা। পাল্টা জবাব দেয় পুলিশ ও সেনা। জঙ্গিদের আত্মসমর্পণ করতে বলে ভারতীয় সেনা। কিন্তু তারা সে কথায় কান দেয়নি। দুই পক্ষের এই মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই জঙ্গি খতম হয়েছে। যদিও জঙ্গিদের পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি বলে জানা যাচ্ছে। 

এদিন অনন্তনাগ জেলার লাল্লন এলাকাতেও সেনাবাহিনীর গুলিকে ২ জঙ্গির খতর হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। গোপান সূত্রে খবর পেয়েই এই অভিযান শুরু করে যৌথ বাহিনী। জঙ্গিদের ডেরা ঘিরে ফেললে সন্ত্রাসবাদীরা এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। তবে যোগ্য জবাব দেয় ভারতীয় সেনাও।

জঙ্গি দমনে উপত্যকায় লাগাতার অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে ভারতীয় সেনা। পয়লা এপ্রিল থেকে ১০ জুন পর্যন্ত ৬৮ জন জঙ্গিকে বাহিনী খতম করেছে বলে জানা যাচ্ছে। এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি জঙ্গি রয়েছে হিজবুল মুজাহিদিনের। এই সময়ের মধ্যে ৩৫ জন হিজবুল জঙ্গিকে খতম করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: কর্ণাটক থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতাতেই রাজ্যসভায় ৪ প্রার্থী, ৮৭ বছরে ফের সাংসদ দেবগৌড়া

সেনা জানিয়েছে, চলতি বছর জানুয়ারি থেকে এখনও পর্যন্ত তাদের অভিযানে শতাধিক জঙ্গিকে নিকেশ করা হয়েছে। এদের মধ্যে লস্কর-ই-তৈবা, হিজবুল মুজাহিদিন এবং জইশ-ই-মহম্মদরে সদস্যরাও রয়েছে। এর মধ্যে গত এপ্রিলেই মৃত্যু হয়েছে ২৮ জন জঙ্গির। 

এদিকে শুক্রবারের পর শনিবারও বারামুল্লা জেলার জরি সেক্টরে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করল পাকিস্তানি সেনা। শুক্রবার সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘন করা পাক সেনার গুলিতে এক মহিলার মৃত্যু হয়। আরও এক মহিলার আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। এদিকে পাল্টা জবাব দেয় ভারতও, যাতে দুই পাক সেনার নিহত হওয়ার খবর মিলেছে। এর আগে গত ১১ তারিখ পাক সেনা যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে গুলি চালালে এক ভারতীয় জওয়ান শহিদ হন।