ভারতীয় সেনাবাহিনীতে মহিলা সেনাদের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে নেওয়া হল উল্লেখযোগ্য সিদ্ধান্ত। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফে আনুষ্ঠানিক অনুমোদনের চিঠিতে ভারতীয় সেনাবাহিনীর মহিলা সেনানীদের প্রতিটি বিভাগের কমিশন গঠনের অনুমতি দেওয়া হল। 

আজ থেকে পাঁচ মাস আগে সেনায় মহিলাদের স্থায়ী কমিশন দেওয়ার বিষয়ে রায় দিয়েছিল শীর্ষ আদালত। সেনায় মহিলা অফিসারদের স্থায়ী ভাবে নিয়োগ করা নিয়ে মাস খানেক আগে ফের সরব হয় সুপ্রিম কোর্ট। এক মাসের মধ্যে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে মহিলা অফিসারদের স্থায়ী কমিশন দেওয়া হয় যেন– এই মর্মে কেন্দ্রকে কড়া নির্দেশ দেয় শীর্ষ আদালত। এর প্রেক্ষিতেই বুধবার কেন্দ্রীয় সরকার সেনার দশটি বিভাগেই এই স্থায়ী কমিশন দেওয়ার ক্ষেত্রে সরকারি বিজ্ঞপ্তি জারি করে। এ প্রসঙ্গে সেনার মুখপাত্র কর্নেল আমন আনন্দ জানিয়েছেন, সেনাবাহিনীতে বড় ভূমিকা পালন করতে মহিলা কর্মীদের ক্ষমতায়নের পথ সুগম করা হল।

আরও পড়ুন: রেডারের আওতার বাইরে থেকে চিনের উপর নজর, সেনার হাতে ডিআরডিও তুলে দিল অত্যাধুনিক 'ভারত'

কেন্দ্রের বিজ্ঞপ্তিত অনুযায়ী, শর্ট সার্ভিস কমিশনের মহিলা আধিকারিকরা ভারতীয় সেনার সকল ১০টি ভাগে স্থায়ী কমিশনার ও শীর্ষ পদ পেতে পারবেন। অর্থাৎ এখন থেকে আর্মি এয়ার ডিফেন্স, সিগন্যাল, ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্মি এভিয়েশন, ইলেকট্রনিক্স, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, আর্মি সার্ভিস কর্পস, আর্মি অর্ডিন্যান্স কর্পস, ইন্টেলিজেন্ট কর্পসেও স্থায়ী কমিশন পাবেন মহিলারা। এর পাশাপাশি জাজ এন্ড এডভোকেট জেনারেল, আর্মি এডুকেশনাল কর্পসেও জায়গা দেওয়া হবে মহিলা সেনানীরা।

 প্রসঙ্গত, ২৩ জুলাই ক্যাপ্টেন লক্ষ্মী সেহগালের প্রয়াণ দিবস। নেতাজীর আজাদ হিন্দ বাহিনীর রানি ঝাঁসি রেজিমেন্টের দায়িত্বে ছিলেন  লক্ষ্মী সেহগাল। তাঁর প্রয়াণ দিবসে মহিলাদের স্থায়ী কমিশন দেওযার বিষয়টি তাই আলাদা মাত্রা নিয়ে এসেছে। 

আরও পড়ুন: মানুষের সেবা করতে বলেছিলেন বাবা, সেই পথে হেঁটেই বিজেপির যুব সহসভাপতি বীরাপ্পন কন্যা

কেন্দ্রীয় নির্দেশ জারি হওয়ার ফলে এবার শীঘ্রই পার্মানেন্ট কমিশন সিলেকশন বোর্ডের তরফ থেকে মহিলা অফিসারদের নিয়োগ শুরু হবে। 
ফলে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে এবার মহিলারা সমানভাবে নিজেদের দেশ সেবায়  ব্রতী করার সুযোগ পাবেন।  যদিও এই নিয়োগ কমব্যাট অপারেশনের ক্ষেত্রে লাগু হচ্ছে না। অর্থাৎ মহিলাদের সরাসরি যুদ্ধ ক্ষেত্রের সঙ্গে  যুক্ত রাখা হবে না।  বর্তমানে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে ৩.৮৯ শতাংশ মহিলা সেনানী রয়েছেন, নৌবাহিনীতে ৬.৭ শতাংশ এবং বায়ুসেনায় ১৩.২৮ শতাংশ মহিলা কর্মরত রয়েছেন।