১৪ বছর পর হারিয়ে যাওয়ার ওয়ালেট ফিরত পেলেন। সঙ্গে ফিরত পেলেন কিছু টাকাও। আর তাতে কিছুটা হলেও চমকে গেছেন মুম্বইয়ের বাসিন্দা হেমন্ত পাদালকর। 

সালটা ছিল ২০০৬। আজ থেকে প্রায় ১৪ বছর আগে লোকাল ট্রেনে সফর করার সময় ছত্রপতি শিবাজি টার্মিনার্সে খোয়া গিয়েছিল তাঁর ওয়ালেট। মানিব্যাগে সেই সময় ৯০০ টাকাও ছিল। ওয়ালেট না পেয়ে স্থানীয় জিআরপি-র কাছে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন হেমন্ত পাদালকর। 

চলতি বছর এপ্রিল মাসেই তাঁর ওয়ালেটটি পাওয়া গিয়েছ বলে জিআরপির তরফ থেকে জানান হয়ে। কিন্তু করোনা মহামারীর কারণে লকডাউন চলায়  সেই সময় তিনি ওয়ালেটটি সংগ্রহ করতে যেতে পারেননি। বর্তমানে লকডাউন কিছুটা হলেই শিথিল করা হয়েছে। আর এই সময়ই নভি মুম্বইয়ের পানভেলার বাসিন্দা হেমন্ত তার খোয়া যাওয়ার ওয়ালেটটি সংগ্রহ করেন। সেই সঙ্গে তিনি কিছু টাকাও ফিরত পান। 

ড্রাগনদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করেই হিমাচলের আকাশ রাফালের টহল, রাতের অন্ধকারে চলছে মহড়া

রাজস্থান রাজনীতিতে নয়া মোড়, গেহলটের হৃদকম্পন বাড়িয়ে রাহুল-প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে বৈঠক শচীন পাইলটের ..


পাদালকার জানিয়েছেন, দীর্ঘ দিন পর টাকা ও ওয়ালেট ফিরত পেয়ে তিনি খুশি। কিন্তু কী করে এত বছর পর তাঁর হারিয়ে যাওয়ার ওয়ালেট পুলিশ খুঁজে দিতে পারল তা নিয়ে রীতিমত অবাক হয়েছেন। জিআরপির তরফে জানান হয়েছে পাদালকরের ওয়ালেট যে চুরি করেছে কয়েক দিন আগেই তাকে আটক করা হয়েছে। তার থেকেই ৯০০ টাকা উদ্ধার  করা হয়েছে। 

'ধনীর বিশ্বে' করোনা-মাহামারী শেষ হবে আগামী বছর , কেন আশার আলো দেখাচ্ছেন বিল গেটস ...

পাদালকর জানিয়েছেন তাঁর ব্যাগে সেই সময় মোট ৯০০ টাকা ছিল। একটি ৫০০ টাকার একটি নোট ছিল। কিন্তু নোট বন্দির পর ৫০০ টাকার নোট বাতিল করা হয়েছে। তাই জিআরপি তাঁরে ৩০০ টাকা দিয়েছেন আর প্রয়োজনীয় কিছু স্ট্যাম্প পেপারের জন্য ১০০ টাকা কেটে নিয়েছে।  জিআরপির তরফ থেকে বলা হয়েছে হেমন্তের ৫০০ টাকা নতুন টাকার সঙ্গে বদল করে কয়েক দিন পরেই তাঁকে ফিরিয়ে দেওয়া হবে।